তোতাপুরি জাতের ছাগলের এর খামার করে মাহিমের আয় ২৫ লাখ টাকা

হিলিতে শখের বসে বাড়ির ছাদে তোতাপুরি জাতের ছাগলের খামার গড়ে তুলেছেন ইঞ্জিনিয়ার সিহাব শাহারিয়ার মাহিম। প্রথমে শখে খামার গড়লেও তা এখন বাণিজ্যিকভাবে লালন পালনের রূপ নিয়েছে। যেখান থেকে লাখ লাখ টাকা আয় করছেন।

 

 

তোতাপুরি ছাগলের খামার করা মায়ের স্বপ্ন ছিলো। এখন মা না থাকলেও মায়ের হাতে গড়া খামারটি রয়েছে। ২০১৪ সালে মাকে নিয়ে উন্নত চিকিৎসার জন্য পাড়ি দিতে হয়েছিল ভারতের মুম্বাইয়ে।

 

 

চিকিৎসা শেষে ফেরার পথে মায়ের আবদারে এক লাখ ২০ হাজার টাকা দিয়ে ২টি তোতাপুরি ছাগলের বাচ্চা কিনে আনেন তিনি।

 

 

২০১৮ সালে মা চলে গেলেও থেমে নেই মায়ের স্বপ্ন, বরং বেড়েছে ছাগল খামারের পরিধি, সেই সঙ্গে বাড়ছে আয়ের উৎস। এই অল্প সময়ে মধ্যে ২০০ ছাগল বিক্রি করে আয় হয়েছে ২৫ লাখ টাকা।

 

 

মাহিমের কয়েকজন প্রতিবেশী বলেন, আমরা তার প্রতিবেশী হয়েও বুঝতেই পারেনি বাড়ির ছাদে এত সুন্দর একটি ছাগলের খামার রয়েছে।

 

 

খামার দেখতে আসা কয়েকজন জানান, আমরা জানি যে বাড়ির ছাদে ফুলের টব বা গাছ লাগিয়ে সৌন্দর্য বাড়ানো হয়।

 

 

কিন্তু বাড়ির ছাদে ছাগলের খামার করে যে লাখ লাখ টাকা আয় করা যায় তা এই প্রথম দেখলাম। এটা একটা দৃষ্টান্ত যে শিক্ষিত মানুষ বেকার না থেকে খামার করে লাখ লাখ টাকা আয় করছেন।

 

 

এ বিষয়ে মাহিমের বাবা বলেন, আমার ছোট্ট সংসার একটিমাত্র ছেলে। স্ত্রী সন্তানকে নিয়েই থাকতাম একসঙ্গে। স্ত্রী মারা যাওয়ার পরে তার রেখে যাওয়া দুটি ছাগলের বাচ্চা আর সন্তানকে বুকে আগলে রেখেই সময় কাটে।

 

 

আজ সেই দুটি ছাগল থেকে অনেকগুলো ছাগল হয়েছে। পরিণত হয়েছে খামারে। যেখান থেকে মাসে লাখ লাখ টাকা আয় হচ্ছে। যেখান থেকে সংসারে সচ্ছলতা ফিরেছে।

 

 

মাহিমের খামার থেকে প্রতিটি তোতাপুরি জাতের ছাগলের বাচ্চা বিক্রি হচ্ছে ৪০ থেকে ৬০ হাজার টাকা। এসব ছাগল অনলাইনসহ বিভিন্ন মাধ্যমে বিক্রি হচ্ছে।

 

 

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. নুর এ আলম বলেন, বাড়ির ছাদে খামার যেটা মানুষের নজর কেড়েছে। তাও আবার উত্তর অঞ্চলের মধ্যে প্রথম।

 

 

খামার করে সচ্ছলতা ফিরেছে শিক্ষিত যুবক মাহিমের। মাহিম আমাদের সমাজের জন্য দৃষ্টান্ত হয়ে থাকবে। মাহিমকে সব ধরনের সহযোগিতার আশ্বাস ও দেন তিনি।

 

 

উপজেলা প্রাণী সম্প্রসারণ কর্মকর্তা ডাক্তার ফাইজা খাতুন বলেন, আমরা এই খামারটিতে বিনামূল্যে ওষুধ প্রদানসহ সব ধরনের পরামর্শ দিয়ে যাচ্ছি। এ ধরনের খামার যদি কেউ করতে চায় তাকেও সব ধরনের সহযোগিতা করা হবে বলে জানান তিনি।

 

তথ্যসূত্রঃ আধুনিক কৃষি খামার