এক ছাগলের দাম দেড় লাখ টাকা! ওজন ১১০ কেজি

ডোরাকাটা আকর্ষণীয় রঙের ছাগলটির নাম ‘বাদশা’। ওজন ১১০ কেজি। ছাগলটি লালন-পালন করছেন চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জ উপজেলার শেখটলা গ্রামের বদিউজ্জামান।

 

 

সিরোহি (ব্রিডার) জাতের এ ছাগলটি দেখতে দূর-দূরান্ত থেকে মানুষ ছুটে আসছেন। এটি জেলার সবচেয়ে বড় ছাগল বলে জানিয়েছে জেলা প্রাণিসম্পদ কার্যালয়।

 

 

জানা যায়, বদিউজ্জামানের ছেলে দুরুল হুদা দেড় বছর আগে ঢাকা থেকে ৫০ হাজার টাকা দিয়ে ছাগলটি কিনে এনছেন। বাদশা দৈনিক প্রায় ১০০ টাকার খাবার খায়। দিনে তিন থেকে পাঁচ বার খাওয়াতে হয় তাকে। এর মধ্যে বেশি পছন্দ বিভিন্ন গাছের পাতা। এছাড়া তার খাদ্য তালিকায় রয়েছে চাল, গম, ঘাস, কাঁঠাল পাতা, ডালের গুড়া।

 

 

বদিউজ্জামান বলেন, বাড়িতে সবাই ছাগলটিকে খুব আদর করে। তাই সবার সঙ্গেই সে মিশে যায়। ছাদের ওপর সুন্দর করে ঠান্ডা স্থানে তার জন্য ঘর করা আছে। সেখানেই বাদশা থাকে। সে খুব ঠান্ডা বাসস্থান পছন্দ করে। এখন বাদশাকে বিক্রি করলে প্রায় দেড় লাখ টাকা পাওয়া যাবে।

 

 

দুরুল হুদা বলেন, যখন ছাগলটি কিনে এনেছিলাম, তখন ওজন ছিল প্রায় ১৫-২০ কেজি। আমাদের বাড়িতে এখন প্রায় ৫০টি ছাগল রয়েছে। আরও একটি ছাগল আছে, যার ওজন প্রায় ৭০ কেজি। সেই ছাগলটি বিক্রি করলে প্রায় ৫০ হাজার টাকা পাওয়া যাবে।

 

 

বিশাল আকৃতির বাদশাকে দেখতে আসা তরিকুল ইসলাম বলেন, আমারও ইচ্ছে এমন জাতের ছাগল দিয়ে একটি খামার তৈরি করার। এত বড় ছাগল এর আগে আর কোনো দিন দেখিনি। তার নাম যেমন বাদশা দেখতেও বাদশার মতো।

 

 

শিবগঞ্জ উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা শ্রী রনজিৎ চন্দ্র সিংহ বলেন, গত বছর আমরা শিবগঞ্জে ৯০ কেজি ওজনের একটি ছাগল দেখেছিলাম। সিরোহি জাতের ছাগল বাণিজ্যিকভাবে তেমন পালন করা হয় না। তবে অনেকেই শখের বসে বাড়িতে লালন-পালন করে থাকে। প্রাণিসম্পদ বিভাগের তথ্য মতে জেলায় এর থেকে বড় ছাগল নেই।

 

তথ্যসূত্রঃ আধুনিক কৃষি খামার