এই গরমে ৫ রকমের মজাদার বেলের শরবত তৈরির রেসিপি

তীব্র গরমে এক গ্লাস ঠান্ডা বেলের শরবত দেহ ও মনকে যেমন চনমনে করে, তেমনি কোষ্ঠকাঠিন্য, বদহজম, আলসারের মত রোগ দমন করে এবং রক্ত পরিষ্কার করে। বেলের গুণাগুণ বলার অপেক্ষা রাখে না। বাজারে বা ফুটপাতে যে পদ্ধতিতে বেলের শরবত তৈরি হয় তা শরীরের জন্য চরম ক্ষতিকর। তাই বাড়িতেই শরবত বানিয়ে প্রতিদিন সকালে এক গ্লাস খান আর ফিট থাকুন সারাদিন। আজ আপনাদের জন্য নিয়ে এসেছি ৫টি সহজ বেলের শরবত রেসিপি।

১. বেল-দইয়ের শরবতঃ

কি কি লাগবেঃ

বেল – ১টি

দই – আধা কাপ

চিনি – ৪ টেবিল চামচ

লবণ – এক চিমটি

আইস কিউব

ঠান্ডা জল – পরিমাণ মতো

কিভাবে বানাবেনঃ
প্রথমে রুটির বেলন দিয়ে বেলের খোসা ফাটিয়ে নিন। চামচের সাহায্যে ফল বের করুন। এবারে চামচ বা হাতের সাহায্যে ম্যাশ করে দানা আলাদা করে ফেলুন। ঠান্ডা জল ঢেলে পুনরায় আলতো করে ম্যাশ করুন। তারপর ছাঁকনিতে করে ম্যাশড বেল থেকে চামচ দিয়ে চেপে রস ছেঁকে নিন।

রসে চিনি, দই, এবং লবণ দিয়ে মিশিয়ে নিন। প্রয়োজনে জল যোগ করতে পারেন। সার্ভিং গ্লাসে প্রথমে আইস কিউব দিয়ে তার উপর শরবত ঢেলে ঠান্ডা ঠান্ডা পরিবেশন করুন।

২. বেল-পুদিনার শরবতঃ

কি কি লাগবেঃ

বেল – বড় ১টি

পুদিনা পাতা – প্রয়োজন মতো

ঠান্ডা জল – ১ লিটার

লবণ – সামান্য

আইস কিউব – প্রয়োজন মতো

কিভাবে বানাবেনঃ
খোসা থেকে ফল বের করে হাতে চটকে দানা আলাদা করে ফেলুন। তারপর এতে ঠান্ডা জল দিয়ে আবার হাতের সাহায্যে আলতো করে চটকে নিন। এবারে ছাঁকনিতে রস নিয়ে কাঠের চামচের সাহায্যে পিষে ছোবা আলাদা করে ফেলুন।

ছাঁকা রসে চিনি দিয়ে ভালো করে মিশিয়ে নিন। গ্লাসে আইস কিউব আর পুদিনা পাতা কুচির উপর শরবত ঢেলে পরিবেশন করুন। চাইলে পরিবেশনের আগে সামান্য লবণ দিতে পারেন, না দিলেও ক্ষতি নেই।

৩. বেল-জিরার শরবতঃ

কি কি লাগবেঃ

বেল – ২টি

চিনি – ৪ টেবিল চামচ

জিরা গুঁড়া – প্রয়োজন মতো

লবণ – ১ চা চামচের চার ভাগের এক ভাগ

ঠান্ডা জল

কিভাবে বানাবেনঃ
বেলের খোসা ভেঙে ফল বের করে নিন। একটি বাটিতে বেল ঢালুন এবং বেলের দ্বিগুণ পরিমাণ জল দিয়ে দিন। এবারে ম্যাশ করুন। ম্যাশড বেল ছাঁকনিতে নিয়ে চামচের সাহায্যে রস চিপে বের করুন। এবারে রসে প্রয়োজনমতো ঠান্ডা জল বা আইস কিউব মিশিয়ে নিন। তারপর লবণ ও জিরা গুঁড়ো দিয়ে দিলেই ঠান্ডা ঠান্ডা বেলের শরবত তৈরি।

৪. বেল-গুড়ের শরবতঃ

কি কি লাগবেঃ

বেল – মাঝারি সাইজের ৩টি

গুড় – ১২ টেবিল চামচ বা প্রয়োজন মতো

এলাচ গুঁড়ো – ১ চা চামচের তিন ভাগের এক ভাগ

ভুনা জিরার গুঁড়ো – ১ চা চামচের তিন ভাগের এক ভাগ

বিট লবণ – দুই চিমটি

ঠান্ডা জল – ৩ থেকে ৩.৫ কাপ

কিভাবে বানাবেনঃ
বেলন দিয়ে বেল ৩টা ভেঙে নিন। এরপরে বড় চামচ দিয়ে ভেতরের ফল বের করে বাটিতে রাখুন। এতে ১ কাপ জল মেশান এবং ২০ মিনিট ভিজিয়ে রাখুন। ২০ মিনিট পরে একটি ভেজিটেবল ম্যাশার দিয়ে বেল ম্যাশ করে নিন।

এবারে একটি বড় ছাঁকনিতে ম্যাশ করা বেল ছাঁকুন। ছাঁকার সময়ে চামচ দিয়ে জোরে জোরে পিষবেন যাতে দানা আর ছোবা আলাদা হয়ে যায়। আর অবশ্যই একটু একটু করে জল মেশাবেন ছাঁকার সময়ে, আধা কাপ থেকে পৌনে এক কাপের মতো।

রস পুরোপুরি ছাঁকা হয়ে গেলে এতে গুড় বা সম পরিমাণ চিনি মেশাবেন। মিষ্টির পরিমাণ চাইলে কমবেশি করতে পারবেন। আর রসে জলের পরিমাণও বাড়াতে বা কমাতে পারেন। এরপরে জিরা গুঁড়ো, এলাচ গুঁড়ো, এবং বিট লবণ দিয়ে দিন। গ্লাসে ঢেলে পরিবেশন করুন।

৫. বেলের শরবতঃ

কি কি লাগবেঃ

বেল – মাঝারি সাইজের ১টি

বিট লবণ – আধা চা চামচ বা স্বাদমতো

চিনি – ৭-৮ চা চামচ

ভুনা জিরার গুঁড়ো – আধা চা চামচ

আইস কিউব – প্রয়োজন মতো

জল – প্রয়োজন মতো

কিভাবে বানাবেনঃ
বেলের খোসা ভেঙে ভিতরের ফলটা বের করে একটি বাটিতে রাখুন। এবারে এর সাথে ২ গ্লাস জল মিশিয়ে চামচ দিয়ে ভালো করে নেড়ে ১ ঘন্টা ঢেকে রাখুন। বেল নরম হওয়ার জন্য এভাবে জলে ভিজিয়ে রাখতে হবে।

১ ঘন্টা পরে একটি পটেটো ম্যাশার দিয়ে জলে থাকা বেলকে ম্যাশ করুন। এতে দানা আর ছোবা আলাদা হয়ে যাবে। এবারে একটি বড় ছাঁকনিতে বেল ছেঁকে ছোবা আর দানা আলাদা করে ফেলুন।

যে রসটা থাকবে তাতে আরও ১-২ গ্লাস জল দিয়ে ভালো করে মিশিয়ে নিন। ঠান্ডা করার জন্য পর্যাপ্ত পরিমাণে আইস কিউব নিন। একে একে চিনি, বিট লবণ, আর জিরা গুঁড়ো দিয়ে মিশিয়ে নিলেই তৈরি হয়ে গেল মজাদার বেলের শরবত।