আধুনিক কর্মজীবী নারীদের জন্য দ্রুত রান্না করার ১০টি সহজ টিপস

রান্নার জন্য সবজি কাটা, মশলা কাটা- বাটা, ম্যারিনেড করা, ভাজা ইত্যাদি কাজ প্রতিদিন কর্মজীবী নারীর জন্য করা ভীষণ সময়সাপেক্ষ ও ক্লান্তিকর। অবসর বা বন্ধের দিনে কিছু কাজ আগে থেকে করে রাখলে প্রতিদিনের কাজের ঝামেলা যেমন কমে তেমনি আরাম ও হয়। তাতে বাচ্চা ও পরিবারকে কিছু সময় দেয়া যায়।

আসুন দেখে নিই দ্রুত রান্নার টিপসগুলো-

1. পরিকল্পনা করুনঃ প্রথমেই পুরো সপ্তাহ বা ২/৩ দিনের জন্য কি রান্না করবেন তার পরিকল্পনা করে নিন। সে অনুযায়ী বাজার করে নিন।

2. মাছ- মাংস পরিষ্কার ও ম্যারিনেটঃ মাছ, মাংস কেটে ধুয়ে যে পরিমান একদিনে রান্না করবেন তা ছোট ছোট প্যাকেট করে রাখুন। চাইলে ২/৩ দিনে পরিমান মাংস সব মশলা দিয়ে কসিয়ে ছোট ছোট বক্সে রেখে দিতে পারেন। পরে যেদিন রান্না করবেন সেদিন নামিয়ে সিদ্ধ করে রান্না করে নিন।

3. রান্নায় গরম পানি ব্যবহার করুনঃ রান্না শুরু করার আগেই চুলায় পানি গরম করতে দিন। রান্নাতে গরম পানি ব্যবহার করলে খাবারের স্বাদ যেমন ভালো হয় তেমনি রান্নাও দ্রুত হয়।

4. কৌটায় লেবেল লাগানঃ রান্নাঘরের সব মসলা, চাল, ডালের মোটকথা সব কৌটায় লেবেল লাগান। প্রথম অবস্থায় এই কাজটাকে অনেক ঝামেলাপূর্ণ মনে হলেও দীর্ঘমেয়াদে অনেক লাভ। কোন কৌটায় কি সেটা খুঁজতে সময় নষ্ট হবে না।

5. কাটা ও সংরক্ষণঃ ২/৩ দিন কি রান্না করবেন ঠিক করে সে অনুযায়ী সবজি আগে কেটে রাখতে পারেন। ভালো এয়ার টাইট বক্সে ফ্রিজে সংরক্ষণ করুন। পেঁয়াজও কেটে রাখতে পারবেন এই উপায়ে। ধনেপাতার গোঁড়া ও কাঁচামরিচের বোঁটা ফেলে ধুয়ে, পানি ঝরিয়ে রাখুন। দেখুন অনেক সময় বাঁচবে।

6. আদা- রসুন বাটাঃ আদা, রসুন, পেঁয়াজ এগুলো বেশি করে কেটে, বেটে বা ব্লেন্ডারে ব্লেন্ড করে ডিপ ফ্রিজে রাখুন। ১ সপ্তাহের পরিমানে নরমালে রাখুন, সাথে অল্প লবণ মিশিয়ে ভালো থাকবে। রান্নার সময় লবন একটু কম করে দিলেই হবে।

7. ফ্রোজেন নাস্তা/ টিফিন তৈরিঃ সকালে বাচ্চার টিফিন/হঠাৎ অতিথি অ্যাপায়নের জন্য কিছু ফ্রোজেন খাবার তৈরি করে রাখুন। সিঙ্গারা, সমুচা, বার্গারের টিক্কা, কাবাব, ফ্রোজেন পিজ্জা ইত্যাদি। যখন দরকার হবে তখন ভেজে নিবেন।

8. সস বা পিউরি তৈরিঃ টমেটো, তেঁতুল, চিলি ইত্যাদি সস, টমেটো পিউরি, সয়া সস, ভিনেগার সব সময় বাসায় তৈরি বা কিনে রাখুন, দ্রুত রান্নায় সাহায্য করবে।

৯.রুটির ডো তৈরিঃ সকালের নাস্তার রুটির জন্য আটার ডো আগেই করে রাখতে পারেন। ফ্রিজে এয়ার টাইট বক্স বা প্যাকেটে রেখে দিন ২/৩ দিন পর্যন্ত ভালো থাকবে।

১০.স্মার্ট গাজেট ব্যবহার করুনঃ কাটাকুটি, সংরক্ষণে আজকাল ভালো ভালো কাটার যন্ত্র ও এয়ার টাইট বক্স পাওয়া যায়, সেগুলি ব্যবহার করুন। এতে সময় যেমন বাঁচবে, তেমন অপচয় কম হবে। এভাবে একটু পরিকল্পনা করে কাজ করলে সারা সপ্তাহ অনেক আরামে ও সহজে কাজ করা যাবে।