চিকেন টাকোস

বিকেলের নাস্তায় ঝাল ঝাল কিছু একটা খেতে মন চাইতেই পারে। আর তখন বাইরে থেকে খাবার না কিনে ঘরেই তৈরি করে নিতে পারেন। এসময়ের জন্য মজাদার একটি খাবার হতে পারে চিকেন টাকোস। মুখরোচক নাস্তা হিসেবে চিকেন টাকোস বেশ মজাদার। এই নাস্তাটি বাচ্চারাও খেতে পছন্দ করে। তাছাড়া তৈরি করাও খুব সহজ। চলুন তবে জেনে নেয়া যাক চিকেন টাকোস তৈরির রেসিপিটি-

উপকরণ: আটা এক কাপ, ময়দা এক কাপ, মুগডাল বাটা আধা কাপ, গোলমরিচের গুঁড়া এক চা চামচ, চিলি ফ্লেকস্ এক চা চামচ, লবণ স্বাদ মতো, বেকিং সোডা আধা চা চামচ, সাদা তেল এক টেবিল চামচ ।

টাকোসের পুরের উপকরণ: হাড় ছাড়া মরগির মাংস টুকরা ২০০ গ্রাম, টমেটো কুচি একটি, ছোট ক্যাপসিকাম কুচি একটি, পেঁয়াজ কুচি একটি, কাঁচা মরিচ কুচি পাঁচ থেকে ছয়টি, আদা বাটা এক চা চামচ, রসুন বাটা এক চা চামচ, হলুদ গুঁড়া এক চা চামচ, লবণ স্বাদ মতো, সরিষার তেল প্রয়োজন মতো।

সালাদের উপকরণ: শসা টুকরা করে কাটা দুইটি, টমেটো টুকরা করে কাটা দুইটি, পেঁয়াজ টুকরা করে কাটা দুইটি, রসুন কুচি ছয় কোয়া, কাঁচা মরিচ কুচি চার থেকে পাঁচটি, গোলমরিচের গুঁড়া এক চা চামচ, লবণ স্বাদ মতো, লেবুর রস এক টেবিল চামচ, হট চিলি সস এক চা চামচ।

প্রণালী: প্রথমে মুগডাল কয়েক ঘন্টা ভিজিয়ে একটা পেস্ট বানিয়ে নিন। এখন সেল বানাবার সব উপকরণগুলো

একসঙ্গে ভালোভাবে মিশিয়ে এক ঘন্টা রেখে দিন। আলাদা করে পানি দেয়ার দরকার নেই, মুগডাল থেকে পানি বের হয়।

তাও যদি মনে হয় লাগবে, তখন সামান্য দেওয়া যেতে পারে। এরপর লুচির মতো বেলে হালকা তেলে ভেজে নিন।

এক সাইডে ভাজা হয়ে গেলে লুচিটাকে মাঝখান থেকে ভাঁজ করে অল্প আঁচে মুচমুচে করে ভেজে নিন।

এবার একটি প্যানে তেল গরম করে তাতে মাংস, ক্যাপসিকাম কুচি, টমেটো কুচি, পেঁয়াজ কুচি, আদা-রসুন বাটা, মরিচ কুচি, স্বাদ মতো লবণ ও হলুদ দিয়ে ভালোভাবে কষিয়ে নিন।

এবার সালাদের উপকরণের সঙ্গে গোলমরিচের গুঁড়া, স্বাদ মতো লবণ, লেবুর রস ও হট চিলি সস দিয়ে সব ভালোভাবে মিশিয়ে নিন।

এবার টাকোস সেলগুলোর ভেতরে প্রথমে চিকেনের পুর, তারপর সালাদ ভরে নিন। উপর থেকে চিজ গ্রেট করে দিলেই তৈরি চিকেন টাকোস।