ঘোরয়া ভাবে ঘাড়ের কালো দাগ দূর করার সহজ উপায়

মুখের উজ্জ্বলতা বাড়াতে কত কিনা করেন নারীরা। এক্ষেত্রে পিছিয়ে নেই পুরুষরাও। তবে কেবল মুখের ত্বকের কালো দাগ দূর করা নিয়ে ব্যস্ত হলে হবে না। নজর দিতে হবে ঘাড়ের কালো দাগের উপরও। কারণ ঘাড়ের কালো দাগ আপনার সৌন্দর্য বহুগুণ কমিয়ে দেয়।

মনে রাখবেন, স্কিনের যত্ন নেয়া নারী-পুরুষ উভয়ের জন্যই অনেক জরুরি। কারণ অনেক সময় নারীদের মত পুরুষদের ঘাড়েও কালো দাগ দেখা দেয়। এক্ষেত্রে অবহেলা না করে সতর্ক হতে হবে। কারণ ঘাড়ে কালো দাগ দেখতে যেমন খারাপ লাগে তেমনি এ থেকে সমস্যা পরে আরো বাড়তে পারে। চলুন তবে ঘাড়ের কালো দাগ থেকে মুক্তির কিছু ঘরোয়া উপায় সম্পর্কে জেনে নেয়া যাক-

>> প্রতিদিন ফল ও পর্যাপ্ত পরিমাণ পানি খাওয়ার চেষ্টা করুন। এতে করে শরীর হাইড্রেট থাকবে। স্কিনের কালো দাগও দূর হবে।

>> ঘাড়ের কালো দাগ দূর করতে রেটিনয়েড অনেক উপকারী। তবে এই ট্রিটমেন্টের আগে আপনাকে চিকিৎসকের সঙ্গে পরামর্শ করতে হবে।

>> ভালো ফলাফল পেতে সপ্তাহে দুই থেকে তিনদিন ফেস মাস্ক ব্যবহার করতে পারেন। এতে করে কালো দাগ অনেকটা হালকা হয়ে আসবে।

>> অ্যালোভেরায় অ্যালোইন নামে প্রোটিন রয়েছে যা প্রাকৃতিকভাবে দাগ দূর করতে পারে। রাতে অ্যালোভেরা জেল লাগিয়ে সকালে ধুয়ে ফেলুন।

>> সূর্যের ক্ষতিকর বেগুণী রশ্মি স্কিনের মারাত্মক ক্ষতি করে। শরীরের যেসব অংশ খোলা থাকে তাতে কালচে দাগ পড়ে যায়। এজন্য সানস্ক্রিন ব্যবহার করতে হবে।

>> দুধে যে ল্যাকটিক এসিড থাকে তা স্কিনকে লাবণ্যময়ী করতে সাহায্য করে। যেখানে কালো হয়েছে সেখানে দুধ দিয়ে ২০ থেকে ৩০ মিনিট রাখুন। এরপর ধুয়ে ফেলুন।

>> আলফা হাইড্রক্সি এসিড এবং বেটা হাইড্রক্সি এসিড স্কিনকে পরিষ্কার ও হালকা করে। এসব উপাদান আছে এমন সাবান বা শাওয়ার জেল দিয়ে সপ্তাহে দুদিন ঘাড় পরিষ্কার করে ফেলুন।

>> অ্যাপেল সিডার ভিনেগারে অ্যাসেটিক এসিড রয়েছে। আর অ্যাপেল সিডার ভিনেগার পিগমেন্টেশন কমাতে সাহায্য করে। যে জায়গায় সমস্যা সেখানে ২ থেকে ৩ মিনিট রেখে তারপর ধুয়ে ফেলুন।

কখন চিকিৎসা প্রয়োজন?

প্রাকৃতিক কোনো উপায়ে কাজ না হলে একজন ভালো ডার্মাটোলজিস্টের সঙ্গে পরামর্শ করে লেজার ট্রিটমেন্ট করতে পারেন। তবে ঘাড় কালো হওয়ার কারণটি আগে খুঁজে বের করুন।