পেটে গ্যাসের সমস্যা কার্যকরী এই ৭ ভেষজ খাবার

হজমের সমস্যায় (Bloating Remedy) ভোগেননি, এমন মানুষ এখনকার দিনে খুঁজে পাওয়া যাবে না। তার সঙ্গে যদি জুড়ে বসে গ্যাস-অম্বলের সমস্যা, তা হলে তো আর কথাই নেই। শীতের মরসুম শুরু হয়েছে। ফিশ ফ্রাই, বিরিয়ানি… এক পেটে কত কী!

অনেক সময়ে বারবার টুকটুক করে ভাজাভুজি খাওয়ার ফলেই অম্বল হতে পারে। হয়তো বিকেলের দিকে খিদে পেয়েছে, একটা শিঙাড়া খেয়ে নিলেন। তার আধ ঘণ্টা বাদে চা, মুড়িমাখা খেলেন। এতে কিন্তু অ্যাসিডের সম্ভাবনা বাড়ে। আপনি যত বার খাবেন, তত বার অ্যাসিড নিঃসৃত হয়। ফলে অ্যাসিডের পরিমাণ অতিরিক্ত হলেই বুক জ্বালা, চোঁয়া ঢেকুরের মতো সমস্যা হতে পারে। তাই আগেই সতর্ক হন। গ্যাস-অম্বল নিয়ন্ত্রণে থাকলেই হজম হবে সহজে। শীতও কাটবে নির্বিবাদে। তবে, জানেন কি, কিছু আয়ুর্বেদ (Ayurvedic Herbs) রয়েছে, সেগুলো খেলেই গ্যাসট্রিকের সমস্যা দূর হয়ে যাবে নিমিষে। বা কোনওদিনও যদি বুঝতে পারেন আপনার হজমের সমস্যা আছে, তাহলে খাওয়ার পরই এগুলো খেয়ে নিন, দেখবেন সহজেই মুক্তি মিলবে।

পার্সলে

যাঁরা গ্যাসের সমস্যায় পড়েন তাঁদের জন্য পার্সলে একটি দারুণ ভেষজ। এই পাতাগুলি রান্নায় সর্বাধিক ব্যবহৃত ভেষজ। পার্সলে একটি মূত্রবর্ধক, যা শরীর থেকে জল ও নুনের ক্ষয় বাড়াতে সাহায্য করে।

জিরে

জিরে এমনই একটি মশলা, যা সহজেই প্রতিটি ভারতীয় রান্নাঘরে পাওয়া যায়। আয়ুর্বেদ অনুসারে, জিরে হজম রসকে উদ্দীপিত করে। এটি অ্যাসিডিটি এবং বদহজমের মতো পেটের সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে বেশ কার্যকর বলে প্রমাণিত হয়েছে।

তুলসি

পেটের সমস্যা দূর করতে আয়ুর্বেদে বহু শতাব্দী ধরে তুলসি ব্যবহার হয়ে আসছে। তুলসি পাতার নির্যাস গ্যাস্ট্রাইটিসে আক্রান্ত ইঁদুরের গ্যাস্ট্রিক মিউকোসার প্রদাহ কমাতে প্রমাণিত। এমন অবস্থায় পেটে গ্যাস তৈরি হওয়ার পর নিয়মিত তুলসি পাতা খেলে গ্যাস্ট্রাইটিসের সমস্যা অনেকটাই কমে যায়।

মৌরি

মৌরি পেটের সমস্যার জন্য একটি দুর্দান্ত আয়ুর্বেদিক প্রতিকার। এটি কেবল স্ফীত পেশীগুলিকে শিথিল করে না তবে এটি কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করার একটি দুর্দান্ত উপায়। এই বীজগুলি পাকস্থলী এবং অন্ত্রের পেশীগুলিতে ভাল প্রভাব ফেলে, যা অ্যাসিড রিফ্লাক্সের কারণে সৃষ্ট কোষ্ঠকাঠিন্য এবং গ্যাস দূর করতে সহায়ক।

ঘুম

শীতের মরসুমে পেট সংক্রান্ত সমস্যা হয়। এসব সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে শিলা পাতা খাওয়া খুবই উপকারী বলে মনে করা হয়। সবুজ পাতাযুক্ত ডিলের প্রদাহ-বিরোধী প্রভাব দেখানো হয়েছে যা আপনাকে আরাম বোধ করে।

ক্যামোমিল চা

যাঁরা গ্যাস্ট্রিকের সমস্যায় ভুগছেন তাদের জন্য এই ভেষজ চা দারুণ উপকারী। এই পাতাগুলি গ্যাস্ট্রাইটিসের মতো প্রদাহ কমাতে সাহায্য করে এবং আলসার থেকেও মুক্তি দেয়। হজমের সমস্যা কার্যকরভাবে কমাতে আপনি প্রতিদিন এক কাপ গরম ক্যামোমাইল চা খেতে পারেন। অনেক বিশ্রাম পাবেন।

পুদিনা

যাঁরা খাবার খাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে পেট ফাঁপার সমস্যা, তাঁদের উচিত পুদিনা খাওয়া। এই আয়ুর্বেদিক ভেষজ পেটে অতিরিক্ত গ্যাস গঠন নিয়ন্ত্রণ করে। আসুন আমরা আপনাকে বলি যে পেপারমিন্ট তেলে অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি এবং অ্যান্টি-ব্যাকটেরিয়াল যৌগ রয়েছে, যা আপনাকে গ্যাস্ট্রাইটিসের লক্ষণগুলি থেকে মুক্তি দিতে সাহায্য করতে পারে।

এখানে উল্লিখিত আয়ুর্বেদিক প্রতিকার করার আগে, আপনার চিকিৎসকের সঙ্গে পরামর্শ করুন। এই প্রতিবেদনটি শুধুমাত্র সাধারণ তথ্যের জন্য। এটি কোনোভাবেই কোনো ওষুধ বা চিকিৎসার বিকল্প হতে পারে না। আরও বিস্তারিত জানার জন্য সর্বদা আপনার চিকিৎসকের সঙ্গে যোগাযোগ করুন।