নতুন বছরে পার্টিতে রাখুন চার রেসিপি

আর মাত্র একদিন পরে নিউ ইয়ার পার্টি। নতুন বছরকে বরণ করতে এরই মধ্যে দারুণ প্রস্তুতি চলছে। পোশাক থেকে শুরু করে ঘুরতে যাওয়ার স্থান, সবকিছুরই প্রস্তুতি শেষ। তবে বছরের শুরুতেই পার্টি থাকবে না, তাতো হয় না। নতুন বছরের আগের রাতেই মূলত পার্টির পরিকল্পনা থাকে সবার। পরিবার, বন্ধু আর প্রিয়জনের সঙ্গে মজে ওঠে নতুন বছরের আনন্দে।
বাড়ির ছাদে-ছাদে চলবে বারবিকিউ পার্টি আর নানান ধরনের মিউজিক। আতশবাজি ও ফানুস উড়িয়ে নতুন বছরকে বরণ করে নেবে বাঙালি। আজকের আয়োজনে থাকছে পার্টিতে রান্না করবেন এমন কিছু রেসিপি। চলুন তবে জেনে নেয়া যাক নতুন বছরে পার্টির আয়োজনে রাখতে পারেন এমন চার রেসিপি-

চিকেন বারবিকিউ

উপকরণ: মুরগির মাংস ১২টুকরা, আদা বাটা দুই টেবিল চামচ, রসুন বাটা দুই টেবিল চামচ, মরিচ গুঁড়া দুই টেবিল চামচ, সাদা গোল মরিচ গুঁড়া এক টেবিল চামচ, রোজমেরি এক টেবিল চামচ, সয়াসস দুই টেবিল চামচ, তিনটি আস্ত লেবুর রস, সরিষার তেল আধা কাপ, গরম মশলা গুঁড়া পরিমাণ মতো, এছাড়া বারবিকিউ করার জন্য লাগবে শিক, চুলা ও কয়লা। চুলায় প্রথমে কয়লাগুলো বিছিয়ে সামান্য কেরোসিন ছিটিয়ে আগুন ধরিয়ে নিন।

প্রণালী: প্রথমে মুরগি চার টুকরা করে কেটে ভালোভাবে ধুয়ে পানি ঝরিয়ে নিন।

তারপর ছুরি দিয়ে একটু চিরে নিন। বারবিকিউ সস বাদে অন্য সব উপকরণ একত্রে মিশিয়ে আট ঘণ্টা মেরিনেট করে রাখুন।

দুই ঘণ্টা বাইরে রেখে বাকি ছয় ঘণ্টা ফ্রিজে রাখুন। এবার শিকগুলো ধুয়ে তাতে তেল ব্রাশ করে মাংস গাঁথুন। শিকগুলো চুলায় বসান।

শিকগুলো ঘুরিয়ে ঘুরিয়ে দেবেন ও বারবিকিউ সস দিয়ে একটু পরপর ব্রাশ করে দিন।

যখন মুরগির টুকরোগুলো একটু পোড়া পোড়া হবে, তখন শিকগুলো চুলা থেকে বের করে সাবধানে মাংসগুলো পাত্রে সাজিয়ে নিন।

সালাদের সঙ্গে পরোটা বা নান দিয়ে গরম গরম পরিবেশন করুন।

কোরাল মাছের বারবিকিউ

উপকরণ: কোরাল মাছ এক কেজি সাইজ আস্ত (পেট লম্বালম্বি কেটে পরিষ্কার করে গা তেরছা করে কেচে নেয়া) পেঁয়াজ বাটা এক থেকে দুই কাপ, আদা বাটা এক টেবিল চামচ, রসুন বাটা এক টেবিল চামচ, মরিচ গুঁড়া দুই চা চামচ, তন্দুরী মশলা এক টেবিল চামচ, টক দই দুই টেবিল চামচ, চিলি টমেটো সস এক টেবিল চামচ, লেবুপাতা দুইটি কুচানো, লেমন রাইন্ড এক থেকে দুই চা চামচ, লেবুর রস একটি, সাদা গোলমরিচ গুঁড়া এক থেকে দুই চা চামচ, লবণ স্বাদ মতো, তেল দুই টেবিল চামচ।

প্রণালী: প্রথমে সব মশলা একসঙ্গে ফেটিয়ে নিন। মাছের পানি ঝরিয়ে মসলা দুই পিঠে ভালো করে মাখিয়ে রেখে দিন ৩০ মিনিট।

প্রিহিটেড ওভেনে ট্রেতে মাছটা ঢেকে ৩০ মিনিট বেক করুন। এরপর উপরের র্যাকে গ্রিল করুন ১৫ মিনিট। আবার মাছটা উল্টে আরও ১৫ মিনিট গ্রিল করুন।

পোড়া পোড়া হলে বের করে নিন। পেঁয়াজ মরিচ, দুই থেকে তিন রঙের ক্যাপসিকাম লবণ দিয়ে পরিবেশন করুন মজাদার মাছের বারবিকিউ।

নান রুটি

উপকরণ: ময়দা এক কাপ, বেকিং পাউডার সামান্য, ইস্ট আধা চা চামচ, চিনি এক চা চামচ, লবণ স্বাদ মতো, গরম পানি পরিমাণ মতো, তেল পরিমাণ মতো।

প্রণালী: প্রথমে একটি পাত্রে ময়দা দিন। এতে বেকিং পাউডার, ইস্ট, চিনি, লবণ, গরম পানি ও তেল দিয়ে ভালোভাবে মাখিয়ে খামির তৈরি করুন।

খামির যেন বেশি পাতলা না হয়। এবার খামির চপিং বোর্ডে বেলে নিন নান রুটি আকারে। তারপর প্যান গরম করে রুটি ভেজে নিন।

যেহেতু নান রুটি একটু মোটা করেই তৈরি করা হয়; তাই একটু সময় নিয়ে হালকা আঁচে রুটি ভাজতে হবে। তবে খেয়াল রাখতে হবে রুটি যেন না পুড়ে যায়।

ভাজা হলে নামিয়ে সরাসরি আগুনে এপাশ-ওপাশ হালকা আঁচে সেঁকে নিন রুটি। এরপর কেটে এর উপর বাটার ও ব্রেড ক্রাম্বস ছড়িয়ে পরিবেশন করুন দারুণ স্বাদের নান রুটি।

রাইতা

উপকরণ: টক দই পরিমান মতো, শশা একটি, পেঁয়াজ দুইটি, লবণ স্বাদ মতো, গোল মরিচ গুঁড়া এক চা চামচ।

প্রণালী: প্রথমে টক দই টা ভালো করে ফাটিয়ে নিন। তারপর শশা পেঁয়াজ চিকন করে কেটে ভালোভাবে ধুয়ে নিন।

এবার টক দইয়ের সঙ্গে মিশিয়ে নিন ভালোভাবে। সবশেষে পরিমাণ মতো লবণ ও এক চা চামচ গোল মরিচ গুঁড়া মিশিয়ে বানিয়ে ফেলুন রাইতা।