পায়ের এই সব লক্ষণ দেখে বুঝতে হবে কোলেস্টেরল বিপজ্জনক হারে বেড়েছে

হাই কোলেস্টেরল (Cholesterol) একটি সুপ্ত রোগ। বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই এই রোগের লক্ষণ প্রকাশ পায় না। তবে এই রোগটির কারণে নানান কঠিন অসুখ দেখা দেওয়ার আশঙ্কা তৈরি হয়। তাই প্রত্যেকটি মানুষের উচিত এই অসুখটি নিয়ে সচেতন থাকা। কোলেস্টেরল বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই জীবনযাত্রা, ডায়েটের সঙ্গে সম্পর্কযুক্ত। এই দুই অভ্যাস খারাপ হলে আপনার কোলেস্টেরল বাড়বে। আর অন্যদিকে এই দুই অভ্যাস ভালো হলে কোলেস্টেরল কমে। তবে বিশেষজ্ঞদের মাথা ব্যথার কারণ আবার অন্য। কোলেস্টেরলের প্রাথমিক লক্ষণ না থাকাটাই তাঁদের কাছে সমস্যার বিষয়।

হার্ট অ্যাটাক ও স্ট্রোকের কারণ

রক্তে বেশি মাত্রায় কোলেস্টেরল থাকলে তা রক্তনালীর ভিতরে জমে। এই জমাট বাঁধা কোলেস্টেরলের কারণে রক্ত চলাচল ব্যহত করে। এবার হৃৎপিণ্ডে এই ঘটনা ঘটলে হয় হার্ট অ্যাটাক (Heart Attack)। আর মস্তিষ্কে ঘটলে হয় স্ট্রোক (Stroke)। মনে রাখার বিষয় হল, এই দুটি রোগই কিন্তু প্রাণঘাতী। আর কোলেস্টেরল শুধু এই দুই অঙ্গেই নয়, শরীরের অন্য জায়গাতেও জমতে পারে। সেখানেও দেখা দিতে পারে সমস্যা। তাই এক্ষেত্রে সচেতন থাকা ছাড়া অন্য কোনও উপায়ই নেই। তবে বর্তমান গবেষণা বলছে, পায়ে এমন কিছু লক্ষণ দেখতে পাওয়া যায় যার দ্বারা বোঝা সম্ভব আপনার শরীরে সত্যিই কোলেস্টেরলের মাত্রা অনেকটা বেড়েছে। এবার আসুন সেই লক্ষণ সম্পর্কে জেনে নেওয়া যাক-

পায়ের ত্বক ও নখের রং বদলে যাওয়া

পায়ে কোলেস্টেরল জমা হলে অক্সিজেনযুক্ত রক্ত সেই অংশে পৌঁছয় না। সেই কারণে ওই জায়গার রং বদল হয়। এই কারণে ত্বক হলদেটে দেখায়। রক্তনালী হয়ে যায় নীল।

পায়ে ব্যথা

পায়ের রক্তনালী বন্ধ হলে অক্সিজেনযুক্ত রক্ত পৌঁছাতে পারে না। এই কারণে শরীরের ওই অংশে মেলে না সঠিক পুষ্টি। ফলে পায়ে সবসময় ক্লান্তি অনুভূত হয়। কিছু কিছু ক্ষেত্রে হয় ব্যথা। এই ব্যথা পায়ের সমগ্র অংশে বা নির্দিষ্ট কোনও জায়গাতেও হতে পারে।

পা ফোলা

পায়ে ভালো মতো রক্তচলাচল না হলে হতে পায়ের বিভিন্ন অংশ ফুলতে পর্যন্ত পারে। তাই পা ফুলছে কি না নজর রাখুন।

টান লাগা

শুয়ে থাকার সময় পায়ে টান লাগার ঘটনা প্রায়ই ঘটলে কিন্তু সতর্ক হওয়া ছাড়া গতি নেই। এক্ষেত্রেও রক্তনালীর ভিতরে কোলেস্টেরল জমার কারণেই এমনটা হয়ে থাকে।

পায়ের তলায় ঠান্ডা লাগা

গরম রক্ত না পৌঁছানোর কারণে পায়ে সারাক্ষণ ঠান্ডা লাগাটাও কোলেস্টেরল জমার অন্যতম লক্ষণ হতে পারে। এক্ষেত্রে বিশেষত পায়ের তলা বেশি ঠান্ডা থাকে। তাই এমন লক্ষণ দেখলেও সতর্ক থাকুন।

কী করবেন?

এমন উপসর্গ দেখলে আর অপেক্ষা নয়। তখনই চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়ে করে ফেলুন কোলেস্টেরল টেস্ট (Cholesterol Test)। সেই টেস্টের রিপোর্টে কোলেস্টেরলের মাত্রা বেশি বেরলে চিকিৎসকের পরামর্শ মতো ওষুধ খান। এছাড়া জীবনযাত্রা ও ডায়েটে পরিবর্তনও করতে হবে। তবেই ভালো থাকতে পারবেন।