যখন তখন কান পরিষ্কারের নামে যে ৪টি বড় ভুল করছেন জেনে নিন আজই সচেতন হন

কান (Ear) খুবই গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গ। তাই আমাদের উচিত এই বিশেষ অঙ্গের বিশেষ খেয়াল রাখা। আর এই খেয়াল রাখার সুযোগেই বহু মানুষ কান পরিষ্কার (Ear Cleaning) করে চলেছেন। দেশলাই, ইয়ার বাডস থেকে শুরু করে লোহার টুকরো… কান পরিষ্কারের হাজার রকম উপায় মানুষের কাছে উপস্থিত। তবে এই ধরনের উপকরণ কানে ঢুকিয়ে আদতে কানেরই যে ১২টা বাজছে, এটা কেউ বুঝতে পারছেন না। তাই বিশেষজ্ঞরা এই বিষয়ে বারেবারে সচেতন করেছেন যেন কান পরিষ্কারের নামে এই কয়েকটি ভুল একেবারেই না করা হয়-

কানে বাডস ব্যবহার

কটন বাডস (Cotton Buds) দিয়ে কান পরিষ্কার করার হিরিক রয়েছে। এক্ষেত্রে একটি ছোট প্লাস্টিকের দণ্ডের সামনে লাগানো থাকে তুলো। তাই নাকি কান পরিষ্কারের জন্য আদর্শ। তবে জানলে অবাক হবেন, এই কটন বাডস দিয়ে কান পরিষ্কার একেবারেই ভালো নয় বলেই মত দিচ্ছেন বিশেষজ্ঞরা। কারণ কটন বাডস কান পরিষ্কারের জন্য তৈরিই হয়নি। কানের মধ্যে এই উপকরণ প্রবেশ করালে কানের ময়লা আরও ভিতরে প্রবেশ করে যেতে পারে। তখন হতে পারে ইনফেকশন। এমনকী কানের পর্দাতেও লাগতে পরে আঘাত। তখন শোনার ক্ষেত্রেই সমস্যা হবে। তাই সাবধান। এর পরের বার থেকে কান পরিষ্কারের জন্য আর কটন বাডস ব্যবহার করবেন না। বদলে এই উপকরণ আপনি কানের বাইরের অংশের ময়লা পরিষ্কার করার জন্য ব্যবহার করতে পারেন। তাহলে কোনও সমস্যা হবে না।

কানে দেশলাই কাঠি

ইয়ার বাডসের মতোই কানে দেশলাই বা ওই জাতীয় কোনও উপকরণ প্রবেশ করাতে যাবেন না। তাতে ক্ষতি হওয়ার আশঙ্কা কয়েকগুণ বাড়ে। আর কান পরিষ্কারও হয় না।

রোজ রোজ পরিষ্কার

কোনও কোনও মানুষ তো কানের ব্যাপারে এতটাই যত্নশীল যে রোজ রোজ কান পরিষ্কার করতে বসে পড়েন। যদিও বিষয়টা একদমই তেমন নয়। কান রোজ রোজ পরিষ্কার করার কোনও দরকারই নেই। কেবল মাঝে মাঝে স্নানের পর কানের বাইরের দিকটা টাওয়েল দিয়ে পরিষ্কার করে নিন। তাহলেই মিটে যাবে সমস্যা।

যত্রতত্র কান পরিষ্কার করানো

এখনও অপেশাদার মানুষ কান পরিষ্কার করতে পাড়ায় পাড়ায় আসেন। তাঁদের কাছে বহু মানুষ কান পরিষ্কারও করান। যদিও এমনটা করলে ক্ষতি হওয়ার আশঙ্কাই বাড়ে মত দিচ্ছেন বিশেষজ্ঞরা। কারণ এই মানুষগুলি পেশাদার নন। কানের কোথায় আঘাত লাগলে কী হতে পারে, যানেন না। তাই এই মানুষগুলির কাছ থেকে কান পরিষ্কার করা একেবারেই উচিত নয়।

তাহলে উপায়?

সত্যি বলতে কান পরিষ্কারের কোনও প্রয়োজনই নেই। কানের ভিতরের নোংরা বা ওয়াক্স (Ear Wax) নিজের থেকেই বাইরে আসে। তাই কানে কিছু প্রবেশ করিয়ে কানের ১২টা বাজাবেন না। বরং কানের বাইরের অংশ পরিষ্কার করুন। সেখানে জমে থাকে ওয়াক্স। আর একান্তই কানে ময়লা জমেছে মনে হলে চিকিৎসকের কাছে গিয়ে দেখান।