ওয়াশরুমে গিয়ে যে ভুলগুলো আমরা প্রায় সময়ই করে থাকি, দেখুন গ্যালারি

ওয়াশরুম ব্যবহারের ব্যপারে আমাদের কিছু ভ্রান্ত ধারণা আছে। যেমন ধরুন আমরা ভাবি বেসিন টয়লেট প্যানের থেকে বেশি পরিষ্কার, হাত পরিষ্কার না করেই পানির নল ব্যবহার করা কিংবা টয়লেট প্যানে বসার ভঙ্গী কেমন হবে। আজ আপনাদের জানাবো ওয়াশরুম ব্যবহার করার সঠিক কিছু পদ্ধতি যা আপনার স্বাস্থ্যকর জীবনের জন্য খুব জরুরী।

১। কোনটা বেশি বিপদজনক।

আপনি খালি চোখে বুঝতে পারবেন না বাথরুমে কোন জিনিসটায় বেশি ব্যাকটেরিয়া আছে। আপাতভাবে মনে হতে পারে টয়লেট প্যানে বেশি ব্যাকটেরিয়া আছে। কিন্তু বিস্ময়কর হলেও সত্য টয়লেট প্যানের তুলনায় বেসিনে ও বাথটবে বেশী ব্যাকটেরিয়া থাকে। বিজ্ঞানীদের মতে, ওয়াশরুমে ১৯ শতাংশ ব্যাকটেরিয়া থাকে টয়লেট প্যানে ও বাকিসব ব্যাকটেরিয়া পাওয়া যায় বাথটবে ও বেসিনে। কারণ আমরা টয়লেট প্যানের তুলনায় এগুলো কম পরিষ্কার করি। তাই এই ব্যপারে সতর্ক থাকুন।

২। পাবলিক টয়লেটে ঢোকার ব্যাপারে সতর্ক থাকুন।

পাবলিক টয়লেটগুলোর পরিবেশ খুব খারাপ হয়। তাই পাবলিক টয়লেটে ঢোকার আগে সাবান টিস্যু পেপার ইত্যাদি আছে কিনা এ ব্যাপারে জেনে নিন। টয়লেট সাবধানে ব্যবহার করুন এবং ভালোভাবে দুই হাত ধুয়ে ফেলুন।

৩। সঠিক বাথরুমটি পছন্দ করুন।

পরিসংখ্যানে দেখা যায়, মানুষ একদম প্রথমের বাথরুম কিংবা রেস্টরুম কম ব্যবহার করে। তাই প্রথমের বাথরুমটি ব্যবহার করুন।

৪। সঠিক জায়গায় জিনিস রাখুন।

ওয়াশরুমের মেঝেতে কখনোই কিছু রাখবেন না এমনকি বেসিনের পাশে। সবথেকে ভালো জায়গা হল ফ্লাশের উপর রাখলে কিছু রাখতে পারেন। তবে এসব জায়গায় কিছু রাখা থেকে এড়িয়ে যাওয়া ভালো।

৫। ঠিকভাবে বসুন।

বর্তমানে আমরা টয়লেট প্যানে ৯০ ডিগ্রি ভঙ্গীতে বসে থাকি। কিন্তু এটা কোনভাবেই সঠিক ও প্রাকৃতিক ভঙ্গী নয়। এতে আপনার অস্বস্তি হবে এবং টয়লেট করতে কষ্ট হবে। টয়লেট করার সবথেকে ভালো ভঙ্গী হল ৩৫ ডিগ্রি ভঙ্গী। এভাবে সহজে চাপ আসে ও শরীরেরও কোন ক্ষতি হয় না। আপনি এই জন্য টয়লেট প্যানে পিঁড়ি কিংবা টুল ব্যবহার করে তাতে পা রেখে পজিশান নিয়ন্ত্রণ করতে পারেন।

৬। টয়লেট প্যানে টিস্যু পেপার ছড়াবেন না।

অনেকে ভাবে এটা খুব স্বাস্থ্যকর একটা কাজ। কিন্তু এটা সবথেকে অস্বাস্থ্যকর একটি কাজ। কারণ টয়লেট প্যানে এমনিতে ব্যাকটেরিয়া ছড়ায় না। কিন্তু ফ্ল্যাশ করার সময় ছড়ান টিস্যুতে ব্যাকটেরিয়া ছড়ায়। এটা তাদের জন্য খুব উপযুক্ত পরিবেশ সৃষ্টি করে।

৭। টয়লেট প্যানের ঢাকনা বন্ধ করুন।

অবশ্যই টয়লেট ব্যবহার করার পর প্যানের ঢাকনা বন্ধ করতে ভুলবেন না। ফ্ল্যাশ করার পর ঢাকনা বন্ধ করে দিন। এতে জীবাণু ছড়াবে না।

৮। হ্যান্ডওয়াশ ব্যবহার করুন।

বাথরুমে সাবানের বদলে হ্যান্ডওয়াশ ব্যবহার করুন। এটা বেশি স্বাস্থ্যকর। এতে একজনের জীবাণু আরেকজনের কাছে ছড়ানোর ভয় থাকে না।

আপনার বাথরুমের অভিজ্ঞতা থেকে কোন ভুলটা বেশি মারাত্মক বলে মনে হয়েছে। কমেন্ট করে জানিয়ে দিন। পোস্টটি উপকারি মনে হলে লাইক ও শেয়ার করতে ভুলবেন না।