জীবনে সুখী হতে চাইলে এই ১০টি কাজ আজই বাদ দিতে হবে

সুখী হতে চাইলে মেনে নিতে হয় অনেক কিছু। ছোটোবেলায় জীবনটাকে সবার কাছে খুব সুন্দর মনে হয়। সবকিছু অনেক সহজ মনে হয়। কিন্তু বয়স বাড়ার সাথে সাথে সব কিছু কঠিন থেকে কঠিনতর হতে থাকে। এর কারণ হলো বয়স বাড়ার সাথে সাথে আমরা বাস্তবতার সাথে পরিচিত হতে থাকি।

বড়ো হয়ে গেলে আমরা কেন ছোটবেলার মতো সুখী হতে পারি না? কারণ বড় হওয়ার সাথে সাথে নিজের ভালো থাকার চাবিকাঠি অন্যের হাতে তুলে দিতে থাকি। দেহ আজকের আলোচনায় সাজিয়েছে জীবন থেকে যে ১০টি বিষয় বাদ দিলে আপনি প্রকৃত সুখী হতে পারবেন। চলুন জেনে নেওয়া যাক সেগুলো সম্পর্কে।

১. নিজের চাহিদা ও প্রয়োজনকে উপেক্ষা করা বন্ধ করুন

প্রকৃত সুখী হতে সবার আগে নিজের চাহিদাকে গুরুত্ব দিতে হবে। বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই আমরা যে ভুলটা করে থাকি তা হলো নিজের চাহিদা ও প্রয়োজনকে উপেক্ষা করে অন্যের সুখ খোঁজায় ব্যস্ত থাকি। কিন্তু সবার আগে নিজেকে ভালোবাসতে হবে৷ তবেই জীবনে প্রকৃত সুখী হওয়া সম্ভব।

২. জীবনে সুখী হতে চাইলে ভয় ও শঙ্কা বাদ দিন

সৃষ্টিকর্তা আমাদের সৃষ্টির সর্বশ্রেষ্ঠ জীব হিসেবে তৈরি করেছেন। মানুষ আপনাকে নিয়ে কী বলল কি ভাবল এসব নিয়ে ভয় পাওয়া মানে জীবনকে ছোটো করে দেখা। ভয় ও শঙ্কার মধ্যে থাকলে কখনোই জীবনে প্রকৃত সুখী হওয়া যায় না। একজন মানুষ তখনই পরিপূর্ণ মানবজীবন ভোগ করতে পারে যখন সে সমস্ত ভয় ও শঙ্কা কাটিয়ে সামনে এগিয়ে যেতে পারে।

৩. নিজেকে অন্যের সাথে তুলনা করবেন না

যেহেতু প্রতিটি ব্যক্তি আলাদা ও সতন্ত্র, সেহেতু সবার যোগ্যতা ও একরকম হবে না। কারো দক্ষতা ও গুণাবলি বেশি থাকবে কারো একটু কম থাকবে। কাজেই নিজেকে নিয়ে সন্তুষ্ট থাকতে হবে। সফল হতে চাইলে প্রতিনিয়ত চেষ্টা চালিয়ে যেতে হবে।

৪. অনুশোচনা হতে দূরে থাকুন

মানুষ মাত্রই ভুল। সেই ভুল থেকে শিক্ষা নেওয়া উচিত। কিন্তু প্রতিনিয়ত ভুলকে স্মরণ করে অনুশোচনা করলে তা মানুষকে সামনে এগিয়ে যেতে বাধা দেয়। প্রকৃত সুখী হতে চাইলে অনুশোচনা হতে দূরে থাকতে হবে।

৫. জীবনে সুখী হতে চাইলে অতীত নিয়ে আফসোস করবেন না

অতীতে আপনার সাথে কি হয়েছে, কি পেয়েছেন কি হারিয়েছেন সেসব চিন্তাধারা বাদ দিন। কেননা আপনি চাইলেও অতীত এর সময়টাকে এখন ঠিক করতে পারবেন না। তাই বর্তমানে বাঁচুন, যা হারিয়েছেন তার চাইতে ভাল কিছু পাওয়ার চেষ্টা করুন।

৬. সুখী হতে চাইলে ঘৃণা পুষে রাখবেন না

অনেক সময় কোন ব্যক্তি নিজের ভুল বুঝতে পারলেও আমরা তাকে ক্ষমা করতে পারি না। এতে করে আমরা নিজেরাই নিজেদের ক্ষতি করে ফেলি। কেননা এতে আমাদের স্বাভাবিক বুদ্ধি বিবেচনা কাজ করে না। ক্ষমা একটি মহৎ গুণ। জীবনে সুখী হতে চাইলে কারো জন্য অন্তরে ঘৃণা পুষে রাখবেন না।

৭. নেতিবাচক চিন্তাভাবনা করা যাবে না

ভাল চিন্তার ফলাফল যেমন ভালো তেমনি খারাপ চিন্তার ফলাফল ও খারাপ। মানুষের চিন্তাধারাই তার কাজের গতি ও দিক নির্ধারণ করে থাকে। নিজের ওপর বিশ্বাস রাখতে হবে যে আমি পারব, তবেই জীবন যুদ্ধে এগিয়ে যাওয়া সম্ভব।

৮. মন খারাপ করে থাকা যাবে না

যে কোন বিষয়ে দীর্ঘ সময় মন খারাপ করে রাখা উচিত নয়। আমরা পৃথিবীতে স্বল্প সময়ের জন্য এসেছি, তাই প্রতিটি মুহূর্ত কাজে লাগানো উচিত। মন খারাপ কোন সমস্যার সমাধান নয়। জীবনে প্রকৃত সুখী হতে হলে প্রতিটি মুহূর্ত উপভোগ করতে হবে।

৯. চারপাশের সবকিছু জটিল করে দেখা বাদ দিতে হবে

আমরা অনেক সময় সহজ বিষয়কেও অনেক জটিল করে দেখি। নিজের পছন্দের চাইতে অন্যেরা কে কী বলবে তা নিয়ে আমরা মাথা ঘামাই বেশি। জীবনে সুখী হতে চাইলে চিন্তাভাবনা পরিবর্তন করে চারপাশের সবকিছু সহজ করে দেখতে হবে।

১০. সন্দেহ ও রাগ মনে রাখবেন না

সন্দেহ ও রাগ মানুষের মধ্যে শান্তি নষ্ট করে। অনেক সময় আমরা নিশ্চিত না হয়ে শুধুমাত্র সন্দেহের ভিত্তিতে মনে মনে রাগ পোষন করে রাখি। এমন পরিস্থিতিতে সন্দেহ না রেখে সরাসরি কথা বলাই উত্তম।

জীবনকে সহজ করে দেখলেই জীবনে সুখী হওয়া সম্ভব। আমরা কিন্তু চাইলেই নিজেদের চিন্তা ভাবনাগুলো একটু পালটে জীবনকে সহজ ও সুন্দর করে তুলতে পারি। প্রিয় পাঠক আপনি জীবনে সুখী হতে কোন বিষয়গুলো এড়িয়ে চলেন আমাদের সাথে শেয়ার করতে পারেন। ধন্যবাদ দেহ’র সাথে থাকার জন্য।