এই শীতে কান ব্যাথাকে অবহেলা নয়, ফল হতে পারে মারাত্নক

শীতকালে কম তাপমাত্রা দীর্ঘ সময় স্থায়ী হয়। আসলে ঠাণ্ডার কারণে নাক থেকে কানে আসা ইউস্টাচিয়ান টিউবের অনেক সমস্যা হয়। এটি সঠিকভাবে কাজ না করার কারণে, সংক্রমণ বাড়ে এবং প্রদাহের সমস্যা শুরু হয়।

মানব শরীরের পাঁচটি ইন্দ্রিয়ের মধ্যে এটি একটি অন্যতম ইন্দ্রিয়। অনেক সময় আমরা এই কান ব্যাথা নিয়ে অবহেলা করে, তা ঠিক নয়। কারণ কানকে অবহেলা করলে কানে বিভিন্ন ধরনের রোগ হতে পারে। যা শরীরের জন্য ক্ষতিকর। তাই কানকে অবহেলা করা উচিত নয়। সাধারণত কানের ব্যথার কারণ ইনফেকশন, ব্যাকটেরিয়া বা ভাইরাস। এই ব্যথার পাশাপাশি এই সময়ে জ্বর, বমি ও মাথা ঘোরা এই সমস্ত লক্ষণগুলিও অনিবার্য। সেই সঙ্গে ঠান্ডার মধ্যেও কানে ব্যথার সমস্যাকে সাধারণ বলে মনে করা হয়। এর কারণ হতে পারে শীতকালে ঠান্ডা দীর্ঘ সময় স্থায়ী হয়। আসলে ঠাণ্ডার কারণে নাক থেকে কানে আসা ইউস্টাচিয়ান টিউবের অনেক সমস্যা হয়। এটি সঠিকভাবে কাজ না করার কারণে, সংক্রমণ বাড়ে এবং প্রদাহের সমস্যা শুরু হয়।

এর ফলে ধীরে ধীরে কানে সংক্রমণ শুরু হয় এবং ব্যথা শুরু হয়। শুধু তাই নয়, দীর্ঘদিন কফ না বের হলেও কানে ব্যথার সমস্যা হতে পারে। এই ব্যবস্থাগুলি অবলম্বন করে আপনি এর থেকে মুক্তি পেতে পারেন। এর জন্য শীতকালে, ঠান্ডা দ্রুত হয় এবং এমন পরিস্থিতিতে, সময় মতো এর চিকিত্সা করা খুব গুরুত্বপূর্ণ। এই সমস্যা কাটিয়ে উঠলে কানের সমস্যায় পড়তে হবে না।

দাঁত ব্যথা

প্রায়শই, দাঁতে ব্যথাও কানে ব্যথার কারণ হতে পারে। এই জন্য চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়ে তবেই যে কোনও প্রতিকার বা ওষুধ খাবেন। তবে ঘরোয়া উপায়েও এর চিকিৎসা করা যায়।

পেঁয়াজের রস

পেঁয়াজের রস অনেক স্বাস্থ্য সমস্যা নিরাময়ে ব্যবহার করা হয়। এর মাধ্যমেও কানের ব্যথা নিরাময় করা যায়। হঠাৎ কানে ব্যথা হলে দুই থেকে তিন ফোঁটা পেঁয়াজের রস কানে দিন। এটি আপনাকে স্বস্তি দেবে।

সরষের তেল

কানের ব্যথা নিরাময়ের জন্য সরষের তেল সবচেয়ে ভালো বলে মনে করা হয়। আক্রান্ত কানে সরষের তেল গরম করে কয়েক ফোঁটা দিন। তবে সমস্যা গুরুতর হলে অবশ্যই চিকিৎসকের পরামর্শ নিন।

রসুন তেল

কানে হালকা ব্যথা হলে সরষের তেলে রসুনের দুই বা তিন কোয়া গরম করুন। এই তেলের কয়েক ফোঁটা কানে দিন। এটি অনেক স্বস্তি দেবে। অথবা, কান-সম্পর্কিত সমস্যার জন্য, প্রথমে একজন চিকিৎসকের পরামর্শ নেওয়া অবশ্যই প্রয়োজন।