দিন দিন হাঁটু, ঘাড়, কনুই কালো হয়ে যাচ্ছে? দেখুন কিছু ঘরোয়া সমাধান

কথায় কথায় আর বিউটি পার্লারে নয়৷ পকেট থেকে গুচ্ছ গুচ্ছ টাকা খরচ করে বিউটি ট্রিটমেন্টও নয়৷ স্পায়ের মুখে ঝামা ঘঁষে আপনি সহজেই সুন্দর রাখতে পারেন ত্বক৷ রান্নাঘরের কিছু জিনিস দিয়েই সহজেই ঝকঝকে হয়ে উঠতে পারেন এক সপ্তাহেই৷ শুধু চাই তার সঠিক ব্যবহার৷

রান্নাঘরে ব্যবহৃত রোজকার জিনিস দিয়েই সেরে নেওয়া যায় রূপচর্চা৷ আর এই সব ব্যবহারে ত্বকের ক্ষতিও হয় না৷ কেমিক্যাল না থাকায় ত্বক ভালোও থাকে এর নিয়মিত ব্যবহারে৷ চামড়ায় ভাঁজ পড়ছে? সঙ্গে সঙ্গে আমরা বোটোক্স ট্রিটমেন্টের জন্য ছুটছি৷

আবার ত্বকে কালো ছাপ পড়ছে? ব্লিচিং বা ফেয়ারনেস ফেসিয়াল৷ এই সমস্ত ট্রিটমেন্টে বেশিরভাগই ব্যবহার হয়ে থাকে কেমিক্যাল৷ যা ত্বকের ক্ষতি করে সহজেই৷ কিন্তু এই সব সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া যায় সহজেই৷ দাওয়াই রয়েছে আপনার ঘরেই৷

বেকিং সোডা
রান্নাঘরে বেকিং সোডা থাকবেই৷ আর জানেন কি? বেকিং সোডা ত্বকের পক্ষে খুব উপকারী৷ বিশেষ করে ত্বকের কালো ছোপ দূর করতে বেকিং সোডা খুবই কার্যকরী৷ কনুই বা গলার নিচে কালো ছোপ দূর করার জন্য কিছুটা পরিমাণ বেকিং সোডা জলে মিশিয়ে নিয়ে পেস্ট তৈরি করুন৷ এই পেস্ট ছোপের জায়গায় লাগিয়ে দু’মিনিট রেখে দিন৷ ঠাণ্ডা জলে ধিয়ে নিন৷ সপ্তাহে দু’দিন এই পেস্ট লাগালে, খুব সহজেই কালো ছোপ দূর হবে।

আলু
আলু থেঁতো করে কালো ছোপে লাগান৷ আলুর খোসাও লাগাতে পারেন কনুই বা হাঁটুর কালো ছোপে৷ সপ্তাহে দু’দিন করুন৷ দেখবেন খুব সহজেই দূর হবে কালো ছোপ৷

অ্যালোভেরা
কালো ছোপ দূর করতে ব্যবহার করতে পারেন অ্যালোভেরা৷ অ্যালোভেরা শুস্ক ত্বকের ক্ষেত্রে খুবই উপকারী৷

কনুই ও হাঁটুর বিশ্রী কালো দাগ দূর করে দিন খুব সহজ ৩ টি উপায়েঃ

হাঁটু এবং কনুইয়ের কাছে অনেকেরই ত্বক কালচে ধরনের এবং খসখসে হয়ে থাকে। এই কালচে খসখসে ভাবটি খুবি বিরক্তিকর। দেহের অন্যান্য অংশের সাথে একেবারেই বেমানান। অনেকে এ কারণে বিব্রত বোধ করেন। অতিরিক্ত শুষ্ক ত্বক, জীবনযাপনের নানা সমস্যা, অযত্ন, হরমোনের সমস্যা ইত্যাদি কারণে এই সমস্যা দেখা দিতে পারে। তবে এই সমস্যা কিন্তু খুব সহজেই দূর করে দেয়া সম্ভব। আজকে জেনে নিন হাঁটু ও কনুইয়ের এই বিশ্রী কালচে দার ও খসখসে ভাব দূর করার খুবই সহজ উপায়গুলো।

১) হলুদ, মধুর ও দুধের প্যাক

হলুদের রয়েছে অ্যান্টিসেপটিক উপাদান, দুধের মধ্যে রয়েছে ব্লিচিং এজেন্ট এবং মধু প্রাকৃতিক ময়েসচারাইজার। এই প্যাকটি ব্যবহারের ফলে কনুই ও হাঁটুর কালচে দাগ দূর হয় এবং খসখসে ভাবও দূর হয়।

– ১ টেবিল চামচ হলুদ গুঁড়ো ও ১ টেবিল চামচ মধুতে পরিমাণ মতো দুধ দিয়ে পেস্টের মতো তৈরি করে নিন।

– এই পেস্টটি কালচে দাগের উপরে পুরু করে লাগিয়ে নিন। এবং ২০ মিনিট এভাবেই রেখে দিন।

– এরপর শুকিয়ে উঠলে একটু পানি দিয়ে ভিজিয়ে ২ মিনিট আলতো করে ঘষে নিন। এরপর ঠাণ্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

– নিয়মিত ব্যবহারে কয়েকদিনের মধ্যেই ভালো ফলাফল পাবেন।

২) চিনি এবং অলিভ অয়েলের স্ক্রাব

চিনি প্রাকৃতিক স্ক্রাবের কাজ করে। ত্বকের উপরের মরা চামড়া তুলে ত্বকের কালচে ভাব দূর করতে চিনির তুলনা নেই। সেই সাথে অলিভ অয়েলের ময়সচারাইজিং এজেন্ট ত্বকের মসৃণতা ফিরিয়ে আনতে সহায়তা করে থাকে।

– সমপরিমাণের অলিভ অয়েল এবং চিনি একসাথে মিশিয়ে ঘন পেস্টের মতো তৈরি করে নিন।

– এরপর এই পেস্ট দিয়ে ভালো করে কালচে ত্বক স্ক্রাব করে নিন। প্রায় ৫ মিনিটের মতো ত্বকে এই পেস্টটি স্ক্রাব করে নিন।

– এরপর বডিওয়াশ দিয়ে ভালো করে ত্বক ধুয়ে ফেলুন। ব্যস, খুব সহজেই কুনুই ও হাটুর কালচে দাগ দূর করে ফেলতে পারবেন।

৩) লেবু ও মধুর প্যাক

সব চাইতে সহজ এবং এবং সহজলভ্য উপায়ে খুব দ্রুত হাঁটু এবং কুনুইয়ের কালচে দাগ দরতে পারেন লেবু ও মধুর মাধ্যমে। লেবুর ব্লিচিং ইফেক্ট এবং মধুর ময়েসচারাইজিং উপাদান হাঁটু ও কুনুইয়ের কালচে দাগ ও খসখসে ভাব দূর করতে বিশেষভাবে কার্যকরী।

– একটি লেবুর রসের সাথে ১ টেবিল চামচ মধু ভালো করে মিশিয়ে নিন।

– এই লেবু ও মধুর মিশ্রণ ত্বকের কালচে দাগের উপরে ভালো করে লাগিয়ে নিন। ২০ মিনিট এভাবেই রেখে দিন।

– ৩০ মিনিট পর সাধারনভাবেই ত্বক ধুয়ে নিন। সপ্তাহে ৩ বার এই পদ্ধতিটি ব্যবহার করুন ভালো ফলাফলের জন্য।