স্বাদে অতুলনীয় কুমিল্লার ঐতিহ্যবাহী ‘রসমালাই’ তৈরির গোপন রেসিপি

দেশের গণ্ডি পেরিয়ে বহির্বিশ্বেও কুমিল্লার মিষ্টির খ্যাতি রয়েছে। এমন মানুষ খুব কমই আছেন, যারা কুমিল্লায় গেছেন কিন্তু রসমালাইয়ের স্বাদ নেননি। যদিও দেশের বিভিন্ন জায়গায় রসমালাই তৈরি হয়, তবে কুমিল্লার রসমালাই স্বাদে অতুলনীয়।

কুমিল্লার ঐতিহ্যবাহী রসমালাই আপনি চাইলে ঘরেও তৈরি করতে পারেন। এর জন্য জানতে হবে সঠিক রেসিপিটি। চলুন তবে জেনে নেয়া যাক কীভাবে তৈরি করবেন কুমিল্লার ঐতিহ্যবাহী রসমালাই-

ছানা তৈরির উপকরণ:

দুধ ১ লিটার, লেবুর রস ২ টেবিল চামচ, ১ কাপ পানি।

সিরা তৈরির উপকরণ:

চিনি দেড় কাপ ও পানি ৮ কাপ।

অনান্য উপকরণ:

১ লিটার দুধ, সিকি কাপ চিনি, আধা চা চামচ এলাচ গুঁড়া, ২ টেবিল চামচ জাফরান দুধ।

ঐচ্ছিক উপকরণ:

৭টি পেস্তা বাদাম কুচি ও আমন্ড কুচি ৫টি।

এবার রসমালাই তৈরি করার প্রক্রিয়া। রসমালাই এর প্রস্তুত প্রণালীটিকে তিনটি ধাপে ভাগ করা যায়। চলুন এবার রসমালাই তৈরির ধাপগুলো জেনে নেয়া যাক-

প্রথম ধাপ

প্রথমেই তৈরি করতে হবে ছানা। তাই ১ লিটার দুধ চুলায় বসিয়ে দিন। দুধ যখন ফুটে উঠবে তখন দুধে লেবুর রস দিয়ে নাড়তে থাকুন। যখন দেখবেন ছানা তৈরি হয়ে গেছে তখন ছানা একটি পাতলা কাপড়ে ছেঁকে নিন এবং ঠাণ্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে নিন। কাপড়টি নিংড়ে যথাসম্ভব ছানা থেকে বাড়তি পানি বের করার চেষ্টা করুন। তারপর ৫-১০ মিনিট মতো সময় নিয়ে ছানাগুলে হাত দিয়ে ভালোভাবে মিশিয়ে নিন। মিশানো শেষে অল্প অল্প করে ছানা নিয়ে ছোট ছোট মিষ্টির মতো তৈরি করে একটি বড় ছড়ানো প্লেটে রেখে দিন।

দ্বিতীয় ধাপ

দ্বিতীয় ধাপে চিনির সিরা তৈরি হবে যায় মধ্যে আগে তৈরি করা মিষ্টিগুলো ডুবানো হবে। সিরা তৈরির জন্য একটি প্যানে চিনি ও পানি নিয়ে চুলায় বসিয়ে দিতে হবে। প্রায় ১০ মিনিট ফুটানোর পর মিষ্টিগুলোকে সিরায় দিয়ে দিন। তারপর ১৫ মিনিট মিষ্টিগুলোকে সিরায় দিয়ে রাখুন, চুলা অবশ্যই জ্বালনো থাকবে এ সময়। কিছুক্ষণ পর দেখতে পাবেন মিষ্টিগুলো ফুলে উঠছে। তখন সিরা থেকে মিষ্টি গুলো তুলে নিয়ে চেপে চেপে এর ভেতর থেকে বাড়তি পানি বের করে নিতে হবে।

তৃতীয় ধাপ

এবার রসমালাই এর রস তৈরির পালা। একটি প্যানে এক লিটার দুধ জ্বাল দিতে থাকুন যতক্ষণ না তা অর্ধেক হচ্ছে এবং দুধটা ভালো ভাবে নাড়তে থাকুন। দুধ ঘন হওয়া শুরু করলেই এলাচ গুঁড়া, চিনি, জাফরান দুধ দিয়ে দিন। দুধ যখন একদম ঘন হবে তখন নামিয়ে ঠাণ্ডা করুন। ঠাণ্ডা হবার পর মিষ্টিগুলো ডুবিয়ে দিন। ব্যস, তৈরি হয়ে গেলো রসমালাই। পরিবেশনের আগে চাইলে উপরে বাদাম কুচি দিয়ে পরিবেশন করতে পারেন বাসায় তৈরি কুমিল্লার সুস্বাদু রসমালাই।