প্রতিদিনের এই ৫টি সাধারন অভ্যাস অজান্তেই আপনার ওজন বাড়িয়ে দিচ্ছে, আজই সতর্ক হন

অনেক দিন হলো আপনি কোনো ফাস্টফুড বা ক্যান্ডি জাতীয় মিষ্টি কিছু খাচ্ছেন না, নিয়মিত ব্যায়াম করছেন এবং ওজন কমানোর চেষ্টা করছেন। কিন্তু ওজন তো কমছেই না বরং কেন যেন আগের চেয়ে একটু মোটা দেখাচ্ছে। আসলে অধিকাংশ মানুষই জানেন না তার প্রতিদিন সকালের কিছু অভ্যাস ওজন কাঙ্ক্ষিত লক্ষ্যে পৌঁছাতে দিচ্ছে না।

আমরা খুঁজে বের করেছি এমন ৫টি অভ্যাস যা আজই আপনাকে ত্যাগ করতে হবে। তা না হলে হাজার চেষ্টায়ও ওজন কমবে না।

১. অনেক ঘুমান আপনি

কম ঘুম আপনার দেহে স্ট্রেসের জন্য দায়ী কর্টিসল হরমোনের উৎপাদন বাড়িয়ে দেয়। ফলে আগের চেয়ে খাওয়ার পরিমাণও বেড়ে যায়। যা ওজন বৃদ্ধির অন্যতম কারণ। কিন্তু অতিরিক্ত ঘুমাও দেহের ওজন বাড়িয়ে দেয়। সম্প্রতি পিএলএসও জার্নালে প্রকাশিত এক গবেষণা প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, প্রতিদিন ১০ ঘণ্টার বেশি ঘুমলে ওজন নিয়ন্ত্রণ করা কঠিন হয়ে পড়ে। এজন্যই চিকিৎসকরা ৭-৮ ঘণ্টার বেশি ঘুমানোকে সমর্থন করে না।

২. আপনি ঘর অন্ধকার করে রাখেন

ঘুম থেকে উঠেই যদি জানালার পর্দা সরিয়ে ঘর আলোকিত না করেন তাহলে আপনার ওজন কমার সম্ভাবনা কমে আসে। পিএলওএস জার্নালের এক গবেষণা প্রতিবেদন বলছে, সকালের আলো থেকে এক ধরণের নীল আলো পাওয়া যায়, যা আমাদের মেটাবোলিজম বাড়াতে সাহায্য করে। যাদের মেটাবোলিজম কম তরা সহজে ওজন কমাতে পারেন না এটা বহু আগেই প্রমাণিত। সকালের ২০-৩০ মিনিটের আলোই দেহের মেটাবোলিজম বাড়ানোর জন্য যথেষ্ট।

৩. বিছানা গোছান না

শুনতে আশ্চর্যজনক মনে হলেও এটাই বাস্তবতা। যুক্তরাষ্ট্রের ন্যাশনাল স্লিপ ফাউন্ডেশনের এক গবেষণায় দেখা গিয়েছে যারা নিজের বিছানা নিজে গুছিয়ে ঘুমাতে যান তারা অন্যদের চেয়ে ভালো ঘুমাতে পারে। আর অপর্যাপ্ত ঘুম কীভাবে আমাদের দেহের ওজন বাড়িয়ে দেয় তা উপরেই জেনে এসেছেন। ওজন কমাতে হলে অবশ্যই আপনাকে পর্যাপ্ত ঘুমাতে হবে।

৪. ওজন মাপেন না

যুক্তরাষ্ট্রের কর্নেল বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষণা বলছে, প্রতিদিন ওজন মাপার অভ্যাস আপনার ওজন কমানোর মানসিকতাকে দৃঢ় করে। আর ওজন মাপার সবচেয়ে ভালো সময় হলো সকালে ঘুম থেকে ওঠার পরপরই। তাই এখন থেকে প্রতিদিন সকালের নাস্তা করার আগে একবার করে ওজন মাপুন। এজন্য বাড়িতে একটি ওজন মাপার যন্ত্র কিনে খাবার টেবিলের আশেপাশে কোথাও রেখে দিন।

৫. খুব অল্প পরিমাণ নাস্তা করেন

ইসরায়েলের তেলআবিব বিশ্ববিদ্যালয় আপনাকে সকালের নাস্তায় দিনের অন্যান্য সময়ের চেয়ে বেশি খেতে উৎসাহিত করছে। প্রতিদিন সকালে অন্তত ৬০০ ক্যালোরি শক্তি পাওয়া যাবে এমন নাস্তার কথা বলছে বিশ্ববিদ্যালয়টি। এর জন্য নাস্তায় রাখতে হবে প্রোটিন, কার্বোহাইড্রেট এবং হালকা ডেসার্ট। তবেই কেবল আপনার ওজন কমার সম্ভাবনা আছে।