জেনে নিন কাঁচা মরিচ নাকি শুকনো মরিচ, কোনটি স্বাস্থ্যের জন্য উপকারী

দুই ধরণের লঙ্কা সাধারণত ভারতীয় ঘরে ব্যবহৃত হয়। শুকনো লঙ্কা এবং সবুজ কাঁচা লঙ্কা। উভয়েরই স্বাদ এবং স্বাস্থ্য উপকারিতা আলাদা। দু’টি লঙ্কার মধ্যে কোনটি ভালো তা নিয়ে বিতর্ক রয়েছে।

রান্নায় ঝাল নিয়ে অনেকেরই সমস্যা হয়। কেউ ঝাল ভালোবাসেন আবার কেউ ঝাল এড়িয়ে চলেন। লাল রগরগে তরকারি যেমন অনেকে পছন্দ করেন, তেমনই কাঁচা লঙ্কার মুরগিও অনেকের খুব প্রিয়। প্রচলিত আছে লঙ্কা শরীরের জন্য খুবই ক্ষতিকারক। বিশেষ করে শুকনো লঙ্কা। ভিটামিন এবং খনিজ সমৃদ্ধ লঙ্কা আমাদের প্রতিদিনের খাবারকে সুস্বাদু করে তোলে। কেউ শুকনো লঙ্কা গুঁড়ো হিসাবে ব্যবহার করে থাকেন, আবার কেউ সবুজ কাঁচা লঙ্কা কুঁচি দিয়ে খাবারের স্বাদ বাড়ান। তবে কী আপনি জানেন কোন ধরনের লঙ্কা আপনার স্বাস্থ্যের জন্য উপকারী?

স্বাস্থ্যের জন্য শুকনো লঙ্কা না কাঁচা লঙ্কা ভালো

শুকনো লঙ্কার চেয়ে কাঁচা লঙ্কা আপনার স্বাস্থ্যের জন্য ভালো বলে বিবেচিত হয়। আসলে সবুজ লঙ্কায় জলের পরিমাণ বেশি এবং ক্যালোরিও নগণ্য। যারা ওজন হ্রাস করার কথা ভাবছেন তাদের পক্ষে এটি খুব উপকারী। কাঁচা লঙ্কায় পর্যাপ্ত পরিমাণে বিটা ক্যারোটিন, অ্যান্টিঅক্সিডেন্টস এবং এন্ডোরফিনে পাওয়া যায়, অন্যদিকে শুকনো লাল লঙ্কা খেলে সমস্যা তৈরি হতে পারে। এটি আলসারের লক্ষণ। বাজারের লাল লঙ্কার গুঁড়ো এড়িয়ে চলার চেষ্টা করুন। কারণ ওতে অনেক রকম কেমিক্যাল মেশানো থাকে। দরকারে শুকনো লঙ্কা রোদে শুকিয়ে নিয়েও গুঁড়ো করে নিতে পারেন। তবে সবসময় ভোট বেশি কাঁচা লঙ্কার দিকেই।

রক্তে শর্করার নিয়ন্ত্রণ করে

কাঁচা লঙ্কা ডায়াবেটিসের অন্যতম সেরা চিকিত্সা। নিয়মিত কাঁচা সেবন করলে ইনসুলিন স্তর নিয়ন্ত্রণে সহায়তা করে। এটি উচ্চ রক্তে শর্করার মাত্রার ভারসাম্য বজায় রাখা খুব সহজ করে। কাঁচা লঙ্কার মধ্যে থাকে অ্যান্টি অক্সিডেন্ট। আর তা হার্ট ভালো রাখতে সাহায্য করে। রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ে কাঁচালঙ্কায়। সেই সঙ্গে কোলেস্টেরলও নিয়ন্ত্রণে রাখে। চুল আর মাড়ির স্বাস্থ্য রক্ষাতেও সাহায্য করে কাঁচালঙ্কা। সেই সঙ্গে নার্ভের সমস্যাও কমে। তবে রান্নায় কাঁচালঙ্কা দিলে ওই তাপমাত্রায় তার স্বাস্থ্যগুণ নষ্ট হয়ে যায়। আর তাই যে কোনও কিছুর সঙ্গে লঙ্কা বেটে দেওয়ার কথা বলা হয়।

স্ট্রোকের ঝুঁকি কমায়

শুকনো লঙ্কায় থাকে ভিটামিন এ, যা চোখের জন্য খুব উপকারী। এছাড়াও ভিটামিন A রাতকানা রোগ প্রতিরোধ করে। এছাড়াও রেটিনার সমস্যার উপশমও হয়। প্লেটলেটকে জমাট বাঁধতে দেয় না শুকনো লঙ্কা। ফলে হাইপারটেনশন কমে। রক্তচাপও কমে। সেই সঙ্গে স্ট্রোকের ঝুঁকিও কমে।

ওজন নিয়ন্ত্রণ করতে সাহায্য করে

ওজন কমানোর জন্য কাঁচা লঙ্কা খাওয়া একটি ভালো উপায়। এটিতে ক্যালোরি পোড়াতে এবং বিপাক বাড়ানোর ক্ষমতা রয়েছে। যার কারণে আপনার ওজন কমানোর প্রচেষ্টা কিছুটা কমে যাবে। সুস্থ থাকতে চিকিৎসকরা চাঁচা লঙ্কা খাবার কথা বলেন। কারণ কাঁচা লঙ্কায় থাকে প্রচুর পরিমাণ ভিটামিন সি। এছাড়াও থাকে আরও নানা ভিটামিন, খনিজ। এই উপাদান গুলো মুখে লালাগ্রন্থির কার্যকারিতা বাড়িয়ে দেয়।

শুকনো লঙ্কার উপকারিতা

রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ – পটাসিয়ামের মতো উপাদান রয়েছে শুকনো লঙ্কায়। এটি রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে রাখতে সহায়তা করে।

ক্যালোরি বার্ন- ক্যাপসাইসিন নামক যৌগটি শুকনো লঙ্কা থেকে পাওয়া যায়। এটি আপনাকে শরীরের বিপাক বাড়িয়ে সরাসরি ক্যালোরি পোড়াতে সহায়তা করে।

হৃদরোগ থেকে মুক্তি পান- শুকনো লঙ্কা খেলে হৃদরোগের ঝুঁকি হ্রাস করতে পারেন। এটি খেলে রক্ত জমাট বাঁধা বন্ধ হয় এবং শরীরে রক্ত সঞ্চালন ঠিক থাকে।