মুখে দুর্গন্ধ অথবা নিঃশ্বাস দূর করার ৯টি কার্যকরী ঘরোয়া উপায় শিখে নিন

নিঃশ্বাস অথবা মুখের দুর্গন্ধ নিয়ে চিন্তিত? এই সমস্যা আপনার একার নয়। এটি আমাদের সামাজিক জীবনের জন্য একটি বাঁধা হিসেবে দাঁড়াতে পারে। এই সমস্যার জন্য হয়তো খুব অল্পতেই আপনি লজ্জিত অথবা অপ্রস্তুত হতে পারেন। কিন্তু খুব সহজ কয়েকটি নিয়ম মেনে চললেই আপনি পেতে পারেন সজীব এবং সতেজ নিঃশ্বাস। আজকে আমরা আপনাদের জানাবো নিঃশ্বাস অথবা মুখে দুর্গন্ধ দূর করার কিছু কার্যকরী উপায় সম্পর্কে।

নিঃশ্বাস অথবা মুখে দুর্গন্ধ দূর করার উপায়

(১) নিয়মিত দাঁত মাজুন এবং ডেন্টাল ফ্লস ব্যবহার করুন

নিঃশ্বাস অথবা মুখে দুর্গন্ধ এর জন্য প্রধান একটি কারণ হল প্লাক। এটি এক ধরনের আবরন যা দাঁতের উপর লেগে থাকে এবং এর উপর ব্যাকটেরিয়া জমে থাকে। দাঁতের ফাকে আঁটকে থাকা খাবারের কণা এই সমস্যা আরও বাড়িয়ে দেয়। যদি আপনার নিঃশ্বাস এর দুর্গন্ধ নিয়ে খুব বেশি চিন্তিত হন তাহলে নিয়মিত দাঁত মাজুন এবং ফ্লস ব্যবহার করুন। কিন্তু কখনই প্রয়োজনের অতিরিক্ত করবেন না। খুব জোর দিয়ে দাঁত মাজলে দাঁতের এনামেল (Enamel) ক্ষয় হয়ে যায়। ফলে আপনার দাঁত ক্ষয়ের সম্ভাবনা বেড়ে যাবে।

(২) মুখে দুর্গন্ধ তৈরী করে এমন খাদ্য পরিহার করুন

পেঁয়াজ এবং রসুন খাওয়ার ফলে নিঃশ্বাস অথবা মুখে দুর্গন্ধ তৈরী হয়। বিশেষজ্ঞদের মতে পেঁয়াজ অথবা রসুন খাওয়ার পরে শুধু দাঁত মাজলেই দুর্গন্ধ দূর হয়ে যায় না। কারণ এগুলোর কিছু উপাদান রক্তের সাথে মিশে আমাদের ফুসফুস পর্যন্ত যায় ফলে নিঃশ্বাসের সাথে দুর্গন্ধ বের হয়ে আসে। এই সমস্যা থেকে পরিত্রানের উপায় হল পেঁয়াজ এবং রসুন না খাওয়া, বিশেষ করে কোন সামাজিক অনুষ্ঠানে অথবা কাজে যাবার আগে তো একেবারেই নয়।

(৩) জিহ্বা পরিষ্কার রাখুন

স্বাভাবিক ভাবেই আমাদের জিহ্বার উপরে এক ধরনের আবরন তৈরী হয়। এই আবরন দুর্গন্ধযুক্ত ব্যাকটেরিয়া তৈরী করে। আপনার টুথব্রাশের সাহায্যে এই আবরন পরিষ্কার করে নিতে পারেন। অনেকের কাছেই টুথব্রাশের সাহায্যে জিহ্বা একদম পেছন পর্যন্ত পরিষ্কার করাটা কঠিন মনে হতে পারে যেহেতু জিহ্বার তুলনায় টুথব্রাশগুলো বড় হয়ে থাকে।

সেক্ষেত্রে আপনি টাং স্ক্র্যাপার ব্যবহার করতে পারেন। প্রতিদিন সঠিক ভাবে মুখগহ্বরের যত্নের জন্য টাং স্ক্র্যাপার (Tongue scraper) এর প্রয়োজনীয়তা অপরিসীম। জিহ্বার চারপাশে ব্যাকটেরিয়া, খাবারের কণা আর মৃত কোষগুলোকে দূর করার জন্য এটি বিশেষভাবে তৈরী এবং টুথব্রাশের চাইতে অনেক বেশি কার্যকরী। এটি ব্যবহারে নিঃশ্বাস অথবা মুখে দুর্গন্ধ দূর হয়ে যাবে।

(৪) মুখগহ্বর পরিষ্কার করা

আপনার নিঃশ্বাসের সতেজতা ধরে রাখার জন্য এ্যান্টি-ব্যাকটেরিয়াল মাউথওয়াশ ব্যবহার করুন। কোন কিছু খাওয়ার পর পরিষ্কার পানি দিয়ে কুলি করে ফেলুন। তাহলে দাঁত এবং মুখে লেগে থাকা খাবারের কণা পরিষ্কার হয়ে যাবে।

(৫) ক্ষতিকর অভ্যাস পরিহার করুন

ধূমপান নিঃশ্বাসে দুর্গন্ধ তৈরী হওয়ার একটি উল্লেখযোগ্য কারণ। ধূমপানের ফলে মাড়ির টিস্যু (Tissue) ক্ষতিগ্রস্থ হয় আর দাঁতের উপর দাগ তৈরী হয়। এই অভ্যাস মুখের ক্যান্সার হবার ঝুঁকি অনেক বাড়িয়ে দেয়। ধূমপান করা থেকে নিজেকে সরিয়ে রাখতে চাইলে আপনি চিকিৎসকের সাহায্য নিতে পারেন। দেহে নিকোটিনের চাহিদা কমিয়ে আনবে এমন ঔষধ গ্রহণ করতে পারেন।

(৬) দাঁতের মাড়ির যত্ন নিন

ব্যাক্টেরিয়ার মাধ্যমে দাঁতের মাড়ির বিভিন্ন রোগ হয় যা পেরিওডেন্টাল ডিজিজ (Periodontal disease) নামে পরিচিত। এর কারণে মুখে দুর্গন্ধ তৈরী হয়। তাই সবসময় মাড়ির যত্ন নিন এবং পরিষ্কার রাখুন।

(৭) রাতের খাবার শেষ করে মিষ্টি জাতীয় খাবার খাবেন না

ক্যান্ডি, চিউইংগাম এবং যেকোন মিষ্টি জাতীয় খাবার মুখের ভেতর দুর্গন্ধযুক্ত ব্যাকটেরিয়া প্রস্তুত এবং বৃদ্ধিতে সহায়তা করে। তবে চিনিমুক্ত চিউইংগাম খেতে পারেন।

(৮) চিকিৎসকের পরামর্শ

নিয়ম মেনে চলার পরেও যদি মুখে দুর্গন্ধ হয় তাহলে চিকিৎসকের পরামর্শ নিন। কারণ অনেক সময় সাইনাস ইনফেকশান, ফুসফুসের ইনফেকশান, লিভার ও কিডনীর সমস্যার কারনণেও মুখে এবং নিঃশ্বাসে দুর্গন্ধ তৈরী হয়।

(৯) মুখগহ্বর যেন শুষ্ক না থাকে

যদি আপনার মুখের ভেতর শুকিয়ে যায় তাহলে প্রচুর পানি পান করুন। চিনিমুক্ত চিউইংগাম খান অথবা চিনিমুক্ত ক্যান্ডি চুষে খাবেন। এর ফলে আপনার মুখের ভেতরের অংশ শুষ্ক হবে না।

জেনে নিলেন কিভাবে দূর করবেন নিঃশ্বাস অথবা মুখে দুর্গন্ধ। নিয়মিত নিজের যত্ন নিন। ভালো থাকুন সুস্থ থাকুন।