দুধ ঠাণ্ডা না-কি গরম, কোনটা পান করা উপকারি জানুন বিস্তারিত

দুধ একটি আদর্শ খাবার। তাইতো দুধ না খেলে হবে না ভালো ছেলে! এই মিথে বিশ্বাসী আমরা অনেকেই। তবে দুধ ঠাণ্ডা না গরম, কোন অবস্থায় খাওয়া উচিত, জানেন কি?
ঠাণ্ডা ও গরম দুধ খাওয়া নিয়ে বেশ বিতর্ক রয়েছে। অনেকে মনে করেন, গরম দুধ খেলে উপকার বেশি। আবার অনেকের ধারণা ঠাণ্ডা দুধের পুষ্টিগুণ বেশি। আসলে কোনটি সঠিক, জেনে নিন-

এক গ্লাস দুধে আছে প্রচুর প্রোটিন, ভিটামিন ১২, ক্যালসিয়াম, পটাশিয়াম ও ফসফরাস, যা হাড়-দাঁত মজবুত করে। শক্ত করে পেশি। শরীরে পুষ্টি জুগিয়ে সুস্থ রাখে ওষুধ ছাড়াই।

এখন প্রশ্ন হলো, কোন দুধ খেলে বেশি উপকার- ঠাণ্ডা না গরম। ঠাণ্ডা দুধ স্থূলতা কমায়। আর ভালো ঘুম বা হজমশক্তি বাড়াতে গরম দুধের প্রয়োজন। কোনটা আপনার জন্য উপকারী, সেটি নিজেই বুঝে নিন। ঠাণ্ডা ও গরম দুধের উপকারিতা-

> দুধ থেকে তৈরি খাবার যাদের হজম হয় না, তাদের খেতে হবে গরম দুধ। ঠাণ্ডা দুধ তুলনায় ভারী। হজম করা কষ্ট। আর গরম দুধে ল্যাক্টোজের পরিমাণ কম থাকে। তাই এই দুধ সহজে হজম হয়।

> এক ঘুমেই রাত কাটাতে চাইলে ঠাণ্ডা নয়, বেছে নিন গরম দুধ।

> ঠাণ্ডা দুধ স্থূলতা কমায়। যারা গ্যাস্ট্রিক বা স্থূলতার সমস্যায় ভোগেন, তাদের জন্য ঠাণ্ডা দুধ ভীষণ উপকারী। এতে বুক ও পেট জ্বালাও কমে। তাই খাবার পর রোজ আধ গ্লাস ঠাণ্ডা দুধ খান। ওষুধ ছাড়াই সমস্যা কমবে।

> ঠাণ্ডা লাগার ধাত না থাকলে সকালে ঘুম থেকে উঠে খালি পেটে ঠাণ্ডা দুধ খাওয়ার অভ্যাস করুন। এতে শরীরে পানির ঘাটতি মিটবে। তবে রাতে ভুলেও খাবেন না। এতে পেটের সমস্যা দেখা দিতে পারে।