পুরাতন ঢাকার বিখ্যাত ফখরুদ্দিনের ‘খাসির কাচ্চি বিরিয়ানি’ তৈরির গোপন রেসিপি

কাচ্চি খেতে পছন্দ করেন না এমন মানুষ খুব কমই আছে। তবে কিছু কিছু বিখ্যাত কাচ্চি আছে যা সহজেই সবার মন জয় করে। তার মধ্যে ফখরুদ্দিনের খাসির কাচ্চি বিরিয়ানি অন্যতম।

অনেক কাচ্চি প্রিয় মানুষই ফখরুদ্দিনের খাসির কাচ্চি বিরিয়ানি খেতে ছুটে যায় সেখানে। তবে সবদিন কি আর সেই সময় হয়ে ওঠে। তাই ঘরেই তৈরি করে ফেলুন ফখরুদ্দিনের খাসির কাচ্চি বিরিয়ানি। আর এর জন্য অবশ্যই জানা জরুরি এর গোপন রেসিপিটি। দেরি না করে চলুন তবে জেনে নেয়া যাক রেসিপিটি-

উপকরণ: খাসির মাংস ৬ কেজি (প্রতি কেজিতে ৮ থেকে ১০ টুকরা হবে), লবণ ২৫০ গ্রাম বা কিছুটা বেশি, আদা বাটা ১ কাপ, রসুন বাটা ১ কাপ, দই ২ কাপ, জর্দার রঙ বা জাফরান ২ গ্রাম, দারুচিনি ও এলাচ গুঁড়া দুই চা চামচ, লবঙ্গ কয়েকটা, জয়ত্রী ২ চিমটি, শাহী জিরা আধা চা চামচ, আস্ত দারুচিনি ও লবঙ্গ কয়েকটা, কাবাব চিনি ১ চা চামচ, সাদা গোলমরিচের গুঁড়া ২ চা চামচ, পেস্তা বাদাম ৫০ গ্রাম, তেজপাতা ৫ থেকে ১০টা, গোল আলু ১০টা (প্রতিটা ৪ টুকরা), পেঁয়াজ বেরেস্তা পরিমাণ মতো, কালোজিরা চাল ৩ কেজি।

প্রণালী: মাংস ধুয়ে নিন। এবার দইয়ের মধ্যে দারুচিনি, এলাচ গুঁড়া, জর্দার রঙ এক সঙ্গে মিশিয়ে দইটা মাংসে মেশান। এরপর জয়ত্রী, সাদা গোলমরিচ, আদা-রসুন বাটাসহ বাকি সব মসলা মাংসে মেশান।

চালটা আলাদা সেদ্ধ করে নিন। পেঁয়াজ বেরেস্তা করে নিন। আলুর টুকরাগুলো ভেজে নিন।

এবার মসলা মাখানো মাংস রান্নার হাঁড়িতে ঢেলে সাজিয়ে নিন।

তার ওপর ভাজা আলু ও পেঁয়াজ বেরেস্তা ছড়িয়ে দিন।

এবার মাংসের ওপরে সেদ্ধ চাল সমান করে বিছিয়ে নিন। হাঁড়ির নিচে আগুন ও কয়লার দম দিন।

হাঁড়ির মুখে ঢাকনা দিয়ে চারপাশ আটা দিয়ে বন্ধ করে দিন।

তিন থেকে চার ঘণ্টার মধ্যে তৈরি হয়ে যাবে খাসির কাচ্চি বিরিয়ানি।

টিপস: মাংস রান্না করার আগে লবণ পানিতে ভিজিয়ে রাখুন কয়েক ঘণ্টা। মাংস লবণে থাকার কারণে নরম হয়ে যাবে এবং সহজে সেদ্ধ হবে। তারপর ধুয়ে রান্না করুন।