পেঁয়াজ ছাড়াই রাঁধুন ঐতিহ্যবাহী এই তিন পদ

হরেক রকম ঐতিহ্যবাহী খাবার রয়েছে, যেগুলো রান্না করা হয় পেঁয়াজ ছাড়া। অনেকেই ভাবেন, পেঁয়াজ ছাড়া রান্না ভালো হয় না! ধারণাটি ভুল। পেঁয়াজ ছাড়াও রান্না সুস্বাদু হয়। তেমনই কয়েকটি রেসিপির স্বাদ নিতে পারেন। খুব মজা করেই খেতে পারবেন খাবারগুলো। তবে জেনে নিন পেঁয়াজ ছাড়া তিনটি মজাদার রেসিপি-

বাঁধাকপি দিয়ে কৈ মাছ

উপকরণ: কৈ মাছ ৫ থেকে ৬টি, বাঁধাকপি কুচি এক কাপ, রসুন বাটা এক চা চামচ, জিরা গুঁড়া এক চা চামচ, ধনিয়া গুঁড়া এক চা চামচ, হলুদ গুঁড়া এক চা চামচ, মরিচ গুঁড়া এক চা চামচ, গরম মসলার গুঁড়া আধা চা চামচ, তেজপাতা ২টি, শুকনা মরিচ ২টি, লবণ স্বাদ মতো, ঘি ২ চা চামচ, তেল পরিমাণ মতো।

প্রণালী: প্রথমে বাঁধাকপি হালকা সিদ্ধ করে পানি ঝরিয়ে রাখুন। প্যানে তেল তেজপাতা ও মরিচ দিয়ে হালকা ভেজে নিন।

এবার রসুন বাটা, হলুদ গুঁড়া, মরিচ গুঁড়া, জিরা গুঁড়া, ধনিয়া গুঁড়া দিয়ে কষাতে থাকুন। কষানো হয়ে এলে সিদ্ধ করা বাঁধাকপি দিয়ে ঢেকে রান্না করুন।

রান্না হলে তাতে ভাজা মাছ দিয়ে নেড়ে নিন। এবার গরম মসলার গুঁড়া ও ঘি দিয়ে নেড়ে নামিয়ে নিন।গরম ভাতের সঙ্গে পরিবেশন করুন মজাদার বাঁধাকপি দিয়ে কৈ মাছ ভুনা।

নারকেল দুধ দিয়ে ডিমের কোরমা

উপকরণ: সেদ্ধ ডিম চার থেকে পাঁচটি, নারকেল দুধ এক কাপ, এলাচ ২ টি, তেজপাতা ২ টি, রসুন বাটা এক চা চামচ, আদা বাটা আধা চা চামচ,মরিচ গুঁড়া এক চা চামচ, জিরা গুঁড়া এক চা চামচ, ধনিয়া গুঁড়া এক চা চামচ, গরম মসলার গুঁড়া আধা চা চামচ, কাঁচা মরিচ চার থেকে পাঁচটি, তেল পরিমাণ মতো, লবণ স্বাদ মতো।

প্রণালী: প্রথমে প্যানে তেল গরম করে ডিম ভেজে তুলে রাখুন।

এবার এলাচ, তেজপাতা সামান্য ভেজে রসুন বাটা, আদা বাটা, কাঁচা মরিচ কুচি, জিরা গুঁড়া, ধনিয়া গুঁড়া ও লবণ দিয়ে ভালোভবে কষিয়ে নিন।

কষানো হলে নারকেল দুধ দিয়ে রান্না করুন। কিছুক্ষণ পর ডিম দিয়ে দিন।

এবার গরম মসলার গুঁড়া দিয়ে নেড়ে নামিয়ে নিন। পোলাও বা রুটি, পরোটার সঙ্গে পরিবেশন করুন নারকেল দুধ দিয়ে ডিমের কোরমা।

পোস্ত বাটায় চিংড়ি

উপকরণ: চিংড়ি আধা কেজি, আদা বাটা এক চা চামচ, রসুন বাটা এক চা চামচ, পোস্ত বাটা আধা কাপ, হলুদ গুঁড়া এক চা চামচ, মরিচ গুঁড়া এক চা চামচ, জিরা গুঁড়া এক চা চামচ, ধনিয়া গুঁড়া এক চা চামচ,গরম মসলার গুঁড়া আধা চা চামচ, কাঁচা মরিচ ২ থেকে ৩ টি, তেজপাতা ১ টি, শুকনা মরিচ ২ টি, লবণ স্বাদ মতো, তেল পরিমাণ মতো।

প্রণালী: চুলায় প্যান বসিয়ে তেল দিয়ে চিংড়ি ভেজে তুলে রাখুন।

এবার একই তেলে তেজপাতা ও শুকনা মরিচ ভেজে আদা বাটা, রসুন বাটা, হলুদ গুঁড়া, মরিচ গুঁড়া, ধনিয়া গুঁড়া, জিরা গুঁড়া, পোস্ত বাটা ও লবণ দিয়ে কষিয়ে নিন।

কষানো হলে ভাজা চিংড়ি দিয়ে ঢেকে কিছুক্ষণ রান্না করুন। এবার কাঁচা মরিচ দিয়ে নেড়ে নামিয়ে পরিবেশন করুন।