ত্বকের যত্নে সাধারন এই ৫টি ভুল ধারণা পরিহার করুন

ত্বক নিয়ে সবাই কমবেশি ভাবেন। তবে এই ভাবনার অনেক কিছুই কিন্তু ভুল। আসুন জেনে নিই সে রকম কিছু ভ্রান্ত ধারণা সম্পর্কে।

ত্বকের তারুণ্য ধরে রাখার ক্রিম: ত্বকে সজীবতা ও তারুণ্য ধরে রাখবে, এমন বিজ্ঞাপনে আকৃষ্ট হয়ে অনেকেই নানা ক্রিম ব্যবহার করেন, যা কিনা ত্বক বুড়িয়ে যেতে দেবে না। কিন্তু ত্বকের বয়স না বাড়ানোর কোনো নির্দিষ্ট সূত্র নেই। ত্বকের বুড়িয়ে যাওয়া বা ভাঁজ পড়া প্রতিরোধে স্বাস্থ্যকর খাবার খান, রোদে গেলে সানস্ক্রিন ব্যবহার করুন এবং ধূমপান বর্জন করুন—এই ব্যস।

জীবাণু প্রতিরোধী সাবান ত্বক সুস্থ রাখে?: বাজারে অনেক জীবাণু প্রতিরোধী বা অ্যান্টি ব্যাকটেরিয়াল সোপ পাওয়া যায়, যা নাকি সুস্থতার সহায়ক বলে প্রচার করা হয়। আসলে রোজকার ব্যবহারের জন্য নয় এগুলো। ত্বকে স্বাভাবিকভাবেই কিছু ব্যাকটেরিয়া থাকে, যার সব কটি ক্ষতিকারক নয়। বরং এ ধরনের সাবান রোজ ব্যবহার করলে উপকারী জীবাণুও ধ্বংস হয়ে যায়। তাই সাধারণ সাবানই ভালো।

তৈলাক্ত খাবারে ব্রন হয়: ভাজাপোড়া-তৈলাক্ত খাবার খেলে ব্রন বাড়ে—এমন ধারণার পক্ষে কোনো প্রমাণ মেলেনি। যদিও ত্বকে তৈলাক্ত পদার্থ সিবাম বেশি তৈরি হলে ব্রন হয়। তবে এ ধরনের খাবারে ওজন বাড়ে, আর কৈশোরেও হঠাৎ ওজন বৃদ্ধির কারণে হরমোনগত কিছু সমস্যার সৃষ্টি করে, যাতে ব্রন বেশি হতে পারে।

শীতকালে সানস্ক্রিন লাগে না: অনেকের ধারণা, শীত ও বর্ষায় রোদের প্রকোপ কম থাকলে সানস্ক্রিন না ব্যবহার করলেও চলে। কিন্তু শীতের মিষ্টি রোদে অতিবেগুনি রশ্মি আছে। তাই যেকোনো ঋতুতে দিনের বেলায় বের হলে সানস্ক্রিন লাগানো উচিত।

ভিটামিন ই ক্রিমে ত্বকের দাগ দূর হয়: ত্বকে নানা কারণে দাগ হয়। কোনোটি হরমোনজনিত সমস্যা, কোনোটা হয়তো কাটা-ছেঁড়ার কারণে হয়েছে। কোনোটা আবার রোগের কারণে। কারণটার চিকিৎসা করা উচিত। শুধু ভিটামিন ই যুক্ত ক্রিমেই দাগ দূর হয়ে যাবে না।