এবার স্ত্রীর পরকীয়ার জন্য ভাঙলো অনুপমের দ্বিতীয় সংসার, দেখুন বিস্তারিত

কি কারণে পিয়া-অনুপমের এই সিদ্ধান্ত? কোথায় মনের মিল হচ্ছিল না তাঁদের? জানুন বিস্তারিত

অনুপম রায় (Anupam Roy)। বাংলা শুধু নয় বলিউডেও নিজের গান দিয়ে পরিচিতি তৈরি করেছেন তিনি। জাতীয় পুরস্কারেও ভরে গিয়েছে তাঁর ঝুলি। অনুপম রায় নিজের চাকরি জীবন থেকে বিরতি দিয়ে বেছে নিয়েছিলেন গানকে। অনিশ্চিত ভবিষ্যৎকে কী ভাবে নিশ্চিত করতে হয় তা তিনি করে দেখিয়েছেন। কিন্তু বাস্তবে তিনি(Anupam Roy) তাঁর নিজের ব্যক্তিগত জীবনের সঙ্গেও কখনও আপোষ করেননি।

এবার তিনি সিদ্ধান্ত নিলেন বিবাহ বিচ্ছেদের। অনুপম রায়(Anupam Roy) ২০১৫ সালের ৬ ডিসেম্বর বিয়ে করেছিলেন পিয়া চক্রবর্তীকে। পিয়া অনুপম রায়ের দীর্ঘ দিনের বান্ধবী ছিলেন। সেই জানা পরিচিতি থেকেই বিয়ে। পিয়া নিজেও গান করেন। তবে অনুপম রায়ের মতো জনপ্রিয়তা তাঁর ছিল না।

অনুপম ও পিয়াকে (Anupam Roy-piya)এক সঙ্গে বহু অনুষ্ঠানে অংশ নিতেও দেখা গিয়েছে। তাঁদের এই এত গুলো বছরের সংসার দেখে সকলেই বেশ সুখের মনে করেছিলেন। কিন্তু কোথাও হয়ত ঘুণপোকা বাসা বেঁধেছিল সম্পর্কে। যার ফল হিসেবে একে অপরের সম্মতিতেই আলাদা পথে হাঁটবেন এবার তাঁরা।

অনুপম রায়(Anupam Roy-piya) ট্যুইটারে আজ সে কথাই জানিয়েছেন। তিনি লিখেছেন, ” আমরা, অনুপম এবং পিয়া, (Anupam Roy-piya)নিজদের সম্মতিতে একটি সিদ্ধান্ত নিয়েছি। আমরা আমাদের বিয়ের সম্পর্ক থেকে নিজেদের মুক্ত করছি। আমাদের নিজেদের ব্যক্তি স্বাধীনতার কথা ভেবেই আমরা এই পথে এগোচ্ছি।

আমাদের এক সঙ্গে এই এত গুলো বছরের পথ চলা সত্যিই খুব সুন্দর ছিল। আমাদের দু’জনের স্মৃতিতেই গেঁথে থাকবে খুব সুন্দর কিছু মুহূর্ত। যাইহোক, আমাদের কাজের তফাৎ রয়েছে। সেখান থেকেই মনে করি আমাদের দু’জনের স্বামী-স্ত্রীর সম্পর্ক থেকে বেরিয়ে আসা উচিত। আমরা এর আগেও ভালো বন্ধু ছিলাম। ভবিষ্যতেও একে অপরের ভালো বন্ধু থাকবো। এবং দু’জনেই দু’জনের জন্য ভালো জীবনের কামনা করবো।

আমরা আমাদের বন্ধু , পরিবার এবং আমাদের যারা ভালো চান, তাঁদের সকলের কাছেই কৃতজ্ঞ। তাঁরা সকলেই আমাদের জীবনে নানা ভাবে সাহায্য করেছেন আমাদের সামনের দিকে এগিয়ে যেতে। আমরা চাইব ভবিষ্যতেও আমাদের এই সিদ্ধান্তে আপনারা সকলে পাশে থাকবেন। আমাদের এই নতুন সম্পর্ককে আপনারা সকলেই সঠিক ভাবে নেবেন। ”

এই লেখার মাধ্যমে ট্যুইটারে আজ এ কথা জানিয়েছেন অনুপম রায়(Anupam Roy-piya)। তবে এখনও এ বিষয়ে কোনও মনতব্য করেননি তাঁর ঘনিষ্ঠ মহল। এমনকি প্রিয় বন্ধু সৃজিত মুখোপাধ্যায়কেও কিছু বলতে দেখা যায়নি। তবে সম্পর্কে জটিলতা বাড়লে তাঁকে সুস্থ রাখতে বেড়িয়ে আসায় ভালো। এ কথা অনুপম ও পিয়া দু’জনেই মনে করেছেন।