যেসকল কারনে আপনার শিশুকে খুব বেশি বকাঝকা করা একদম ঠিক নয়

ছোট বাচ্চা আছে যাদের তাদের মেজাজ ঠিক রাখাটা বেশ কঠিন হয়ে পড়ে প্রায়ই। তাই দেখা যায় যে, তাদের শান্ত করার জন্য বকা দেয়া হয়। সন্তান যখন কোন ভুল করে তখন অনেক পিতামাতাই বেশ কঠিন শব্দ ব্যবহার করে তাকে শাসন করার জন্য দ্বিতীয়বার চিন্তা না করেই। কারণ তারা মনে করেন যে সন্তানকে বাথরুমে বা অন্ধকার কক্ষে আটকে রাখার চেয়ে তাকে মৌখিকভাবে শাসন করা ভালো। কিন্তু ভুলটা এখানেই! শিশুকে শারীরিকভাবে আঘাত না করেও মৌখিকভাবে বকা দিলেও তার আত্মবিশ্বাস কমে যায়। তাছাড়া শিশুকে কঠিন শব্দ ব্যবহার করে বকা দিলে তাদের যে ক্ষতি হয় সে বিষয়ে জেনে নিই চলুন।

নবজাতক থেকে এক বছরের শিশুদের: এই বয়সের শিশুদের দেখাশুনা করার ক্ষেত্রে প্রচুর ভালোবাসা, যত্ন, স্নেহ এবং ধৈর্য থাকা প্রয়োজন। যদি আপনি প্রসব পরবর্তী বিষণ্ণতায় ভুগে থাকেন তাহলে আপনার সন্তান লালন পালনের ক্ষেত্রে মেজাজ নিয়ন্ত্রণে নাও থাকতে পারে এবং আপনি হয়তো আপনার সন্তানের উপর চেঁচামেচি করতে পারেন। মনোরোগ বিশেষজ্ঞের মতে, এটি আপনাকে কোনভাবেই সাহায্য করবে না। আপনার ছোট শিশুটির কাছে বার্তা পৌঁছানোর জন্য যদি আপনি বকা দেন তাহলে আপনি শুধু একজন বিরক্তকর মানুষেই পরিণত হবেন।

এর প্রভাব: এই বয়সের শিশুদের উপর চেঁচামেচি করা প্রাসঙ্গিক হতে পারে না। এতে তারা শুধু বিরক্তই হবে এবং এতে তাদের ঘুম চক্রে ব্যাঘাত সৃষ্টি হতে পারে।

যা করবেন: শিশুকে শান্ত করার চেষ্টা করুন, তাকে জড়িয়ে ধরুন, তার সাথে খেলা করুন অথবা কথা বলুন। যাতে শিশু নিরাপদ ও স্বস্তি অনুভব করে এবং এর মাধ্যমে আপনার সাথে তার বন্ধন দৃঢ় হবে।

এক থেকে তিন বছরের শিশুদের: এই বয়সের শিশুরা খুবই নমনীয় হয় এবং এই সময়ে তাদের সাথে যে আচরণ করা হয় তা তাদের মনে যে ছাপ ফেলে তা দূর করা বেশ কঠিন হয়ে পরে। বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই শিশুদের বকা দেয়া হয় তাদের শৃঙ্খলা শেখানোর চেয়েও তাদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করার জন্য। শিশু যাতে ভেজা মেঝের উপর দিয়ে দৌড়াদৌড়ি না করে, টয়লেটের নিয়মকানুনগুলো যদি অনুসরণ না করে বা সে যদি খাবার খুব দ্রুত খায় তাহলে হয়তো আপনি আপনার শিশু সন্তানকে বকা দেন। কিন্তু সে এটি বুঝতেই পারে না।

এর প্রভাব: এই বয়সের শিশুদের উপর চিৎকার চেঁচামেচি করলে তারা উদ্বিগ্ন হয়। অনেকবেশি বকাঝকা করলে তাদের মুক্ত চিন্তা এবং আত্মবিশ্বাস ক্ষতিগ্রস্থ হয়।

যা করবেন: এক্ষেত্রে আপনি আপনার সন্তানকে শান্ত করে বসিয়ে বুঝিয়ে বলুন কেন তাকে এই কাজটি করতে নিষেধ করছেন এবং কীভাবে তা তার ক্ষতি করতে পারে।

তিন থেকে পাঁচ বছরের শিশুদের: এই বয়সের শিশুরা নিয়মিত অন্যদের আচরণের সাথে নিজের আচরণের তুলনা করে থাকে। তাই আপনি তার সাথে যেভাবে কথা বলবেন বা বকাঝকা করবেন সে সেটা শিখবে। মনে রাখবেন এই বয়সে তারা বড়দের কাছ থেকে সম্মান আশা করে।

এর প্রভাব: অনেকবেশি বকাঝকা দেয়া পিতামাতা ও সন্তানের বন্ধনের উপর চাপ সৃষ্টি করে। শিশু নিজেকে শুধরানোর চেষ্টা করে বাবা-মা যেমন চায় তেমন ভাবেই। কিন্তু এটি আত্ম-বিধ্বংসী একটি প্রক্রিয়া। এতে সে আপনার প্রতি নির্ভরশীল হয়ে পরে।

যা করবেন: যদি কঠিন কথা বলেও ফেলেন তাহলে দ্রুতই তাকে বুঝিয়ে বলুন কেন বলেছেন এমন কথা। যদি গ্লাস ভাঙার কারণে বা দুধ ফেলে দেয়ার কারণে বকা দিয়ে থাকেন তাহলে দুজনে একসাথে পরিষ্কারের কাজটি করুন। তার ভুল কাজটি সঠিকভাবে করার জন্য তাকে যুক্ত করুন কাজটির সাথে। আপনি যখন তার কাজের সাথে যুক্ত হবেন তখন সে শেখার জন্য আগ্রহী হবে।

বকা দেয়ার ও প্রয়োজন আছে: শিশুকে একেবারেই বকা না দিয়ে বড় করাও ক্ষতিকর। শিশুকে অনেক বেশি প্রশ্রয় দিলেও সে পরবর্তীতে আপনার কথা শুনতে চাইবেনা। পরবর্তীতে অর্থাৎ ৭-৮ বছর বয়সে আপনি যখন তাকে শৃঙ্খলা শেখাতে চাইবেন তখন সে বিদ্রোহ করবে। একটা সময়ে তার মধ্যে আত্ম-বিধ্বংসী অভ্যাস যেমন- ধূমপান, দেয়ালের সাথে মাথা ঠোকা এবং বিচ্ছিন্নতা ইত্যাদি গড়ে ওঠবে। তাই ভালো উপায় হচ্ছে কাজ এবং এর পরিণাম পরিকল্পনা করা। শিশুকে বকা দিলেও দিন শেষে তাকে জড়িয়ে ধরুন ও স্নেহের বাক্য বলুন।

সন্তান লালন পালন সম্পর্কে বাবা মায়ের ১০টি ভুল ধারণা

প্রতিটি বাবা মায়ের কাছে তার সন্তান অনেক বেশি আদরের, অনেক বেশি মূল্যবান। সন্তানকে বড় করতে গিয়ে বাবা মাকে করতে হয় অনেক কষ্ট করতে হয় অনেক ত্যাগ স্বীকার। এই সময় বাবা মা কিছু কাজ করে থাকেন, যা করা একদমই উচিত নয়। বাবা মায়েরা মনে করেন এটি সন্তানের ভালোর জন্য করছেন, বস্তুত নিজের অজান্তে এই কাজগুলো সন্তানের ক্ষতি করছে। গবেষণায় দেখা গেছে, সন্তান লালন-পালনের ব্যপারে কম বেশি অনেক বাবা- মায়ের মধ্যেই রয়ে গেছে বেশ কিছু ভুল ধারণা। যা বাবা মা সঠিক ভাবলেও বাস্তবে তা সঠিক নয়। এমন কিছু ভুল ধারণা নিয়ে আজকের ফিচার।

১. অধিকাংশ পিতা মাতা মনে করেন যে, সন্তানের সামনে সব ধরণের কথা বলা উচিত নয়। এতে সন্তান বেশি চালাক হওয়ার সম্ভাবনা থাকে। আর এতে ভুল করে থাকেন বাবা মায়েরা। মনে রাখবেন মানুষ দেখে শুনে তারপর শিখে। তাই কিছু কিছু বিষয় সন্তানের সামনে আলাপ করুন। এতে সে বাস্তবতার সম্পর্কে ধারণা পাবে।

২. অনেক পিতা মাতা সন্তানকে প্রশংসা করা থেকে বিরত থাকেন। সন্তানকে প্রশংসা করুন, এতে সে ভাল কাজে আগ্রহ পাবে।

৩. বাবা মায়েরা মনে করেন তারা যা ভাবছেন তাই ঠিক। কখনই সন্তানের মনের কথা বোঝার চেষ্টা করেন না। সন্তানের মন বোঝার চেষ্টা করুন।

৪. সন্তানের কাছ থেকে অতিরিক্ত প্রত্যাশা করা থেকে বিরত থাকুন। সন্তানের ক্ষমতা সম্পর্কে ধারণা রাখুন। অতিরিক্ত প্রত্যাশা তাদেরকে কাজে অমনোযোগী করে তুলে।

৫. অনেক বাবা মায়েরা সমবয়সী অথবা বড় ভাই বোনদের সাথে তুলনা করে থাকেন। সে যদি পারে, তুমি কেন পারবে না। তোমাকে পারতেই হবে। এইরকম কথা বলা থেকে বিরত থাকুন। তুলনা তাদের ভিতর হীনমন্যতা সৃষ্টি করে।

৬. ভাল কাজের জন্য পুরষ্কার দেওয়া খারাপ কিছু নয়। অনেক বাবা মায়েরা মনে করেন এতে সন্তানের অভ্যাস খারাপ হয়ে যায়।

৭. বাবা মায়েরা সন্তানের ছোট খাটো মিথ্যা বলা মেনে নেয়। তারা মনে করেন, এই মিথ্যা বলা তাদের সন্তানকে স্মার্ট করে তুলছে। মজার ব্যাপার হল, বাবা মায়েরা নিজেরাই জানে না তার সন্তান কখন মিথ্যা বলছে।

৮. আপনার সন্তান সাহসী হতে পারে। তবে এটি নিয়ে গর্বের কিছু নেই। এই অতিরিক্ত সাহসের কারণে বিপদে আপনাকেই পড়তে হবে।

৯. সন্তানকে নিয়ে প্রতিটা বাবা মা স্বপ্ন দেখেন। তার সন্তান বড় হয়ে ডাক্তার হবে, ইঞ্জিনিয়ার হবে নয়তো বড় কোন বিজ্ঞানী হবে। স্বপ্ন দেখুন, কিন্তু এই স্বপ্নটা সন্তানের উপর চাপিয়ে দিবেন না। সন্তানের ইচ্ছা জানার চেষ্টা করুন। তার স্বপ্নকে গুরুত্ব দিন।

১০. বাবা মা তার সন্তানকে আদর করবেন এটা স্বাভাবিক। কিন্তু অতিরিক্ত আদর, কোন কিছু চাওয়ার সাথে সাথে তা পূরণ সন্তানের ক্ষতি ছাড়া ভাল করবে না। ছোট বয়সে সন্তানের সব ইচ্ছা পূরণ করা হলে ভবিষতে তাকে আয়ত্তে আনা কষ্টকর হয়ে পরে।

শিশু অতিরিক্ত চঞ্চল হলে কী করবেন

শিশুর অতিরিক্ত চঞ্চলতা, অমনোযোগিতা বা অ্যাটেনশন ডেফিসিট হাইপার অ্যাকটিভিটি ডিসঅর্ডার (এডিএইচডি ) এখন বেশ প্রচলিত সমস্যা। এর ফলে শিশুটি হয়তো বেশি অস্থির হয়ে পড়ে। শিশুটি হয়তো ক্লাসে এক জায়গায় বসে থাকতে পারে না, লেখাপড়ায় মনোযোগী হতে পারে না। ফলে তার পড়াশোনায় ক্ষতি হয়। পরবর্তী সময়ে পারিবারিক জীবনেও এর প্রভাব পড়ে। এ বিষয়ে বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দিয়েছেন আনোয়ার খান মডার্ন হাসপাতালের শিশু বিকাশ ও শিশু নিউরো বিশেষজ্ঞ ডা. আনিসা জাহান।

প্রশ্ন : শিশুরা চঞ্চল হয় অনেক সময়। কিন্তু এই চঞ্চলতাকে কখন আমরা সমস্যা বলব?

উত্তর : শিশুদের চঞ্চলতা স্বাভাবিক। কে কত চঞ্চল হবে, এই বিষয়টি বিভিন্ন শিশুর ক্ষেত্রে বিভিন্ন রকম হয়। দেখা গেছে, অতিরিক্ত চঞ্চলতা এবং অমনোযোগিতা দুটো বিষয় একসঙ্গে থাকতে পারে। আবার আলাদাও থাকতে পারে। সাধারণত ১৫ থেকে ২০ ভাগ শিশুর মধ্যে এই সমস্যা থাকে। এদের মধ্যে একটি দল ভালো হয়ে যায়। যখন বড় হয় তখন ২০ থেকে ৫০ ভাগ শিশু স্বাভাবিক হয়ে যায়। আবার এই ২০ থেকে ৫০ ভাগ শিশুর সমস্যাটা অন্য রকমভাবেও থাকতে পারে। এমনি যদি শিশু চঞ্চল হয় এর ফলে কোনো সমস্যা হয় না। এর সঙ্গে আরো কিছু বিষয় যোগ থাকতে পারে। তখনই এটিকে সমস্যা হিসেবে বলা হয়। উদাহরণ স্বরূপ, একটি শিশু হয়তো লিখছে, তার হাতের লেখাটা খারাপ হতে পারে। এটা হয়তো তেমন বড় কিছু না। কিন্তু সে প্রায়ই বানান ভুল করছে। সে হয়তো সব বানান জানে এরপরও ভুল করে, খুব সহজ জিনিস ভুল করে।

পেনসিল, ইরেজার এসব জিনিস হয়তো প্রায়ই হারিয়ে ফেলে। অন্যের জিনিস খেয়ে ফেলে। বাড়ির মধ্যেও সে এটি করতে পারে। কোনো একটা কাজে সে বেশিক্ষণ মনোযোগ দেবে না। জিনিসপত্র ভাঙচুর করতে পারে, ফেলে দিতে পারে। পড়ার ক্ষেত্রে সময় দেয় না বা মনোযোগই দেয় না। এর কারণে স্কুলে লেখাপড়ায় ভালো করতে পারে না।

শিশুটি যদি বেশি চঞ্চল হয়, এটা নিয়ে বাড়ির লোকজন কথা বলে। কিন্তু বিশেষজ্ঞের কাছে যে নিয়ে যেতে হবে সেই বিষয়টি তারা বোঝেন না। আবার অনেক মা-বাবা আছেন সাধারণ চঞ্চলতাটাকে বেশি হিসেবে ধরে নেন। দেখতে হবে এই চঞ্চলতার ফলে শিশুটির আনুষঙ্গিক কাজ ব্যাহত হচ্ছে কি না।

প্রশ্ন : এই অমনোযোগিতা এবং চঞ্চলতাটা সমস্যা কি না সেটি বোঝার আসলে কী উপায়?

উত্তর : এর আসলে নির্দিষ্ট সীমারেখা নেই। বিভিন্ন শিশুর ক্ষেত্রে বিভিন্ন রকম। আবার বাবা-মায়ের অভিযোগের ওপরও নির্ভর করে। এর ফলে শিশুটির হয়তো ঘুমের সমস্যা হচ্ছে, পড়ালেখা ঠিকমতো করছে না। অন্য শিশুর সাথে হয়তো খেলতে দিলে ঝগড়া করে। হয়তো অপর শিশুটিকে ধাক্কা দিয়ে ফেলে দেয়। বাসায় এসে অভিযোগ করে। এ ছাড়া দীর্ঘ সময় কোনো কিছুর জন্য অপেক্ষা করতে পারে না। এসব শিশু সব সময় দৌড়াবে, সেটি নয়। বসে থেকেও নড়াচড়া করতে পারে।

প্রশ্ন : আপনি বলছেন, ছয় থেকে ১২ বছরের মধ্যে সমস্যাটি প্রকাশ পায়। সেই সময় বাবা-মা যদি বিষয়টি না বুঝতে পারেন, সে ক্ষেত্রে ১২ বছরের পরে সাধারণত কী হয়?

উত্তর : বয়স বাড়তে থাকলে, মানসিক বৃদ্ধি হতে থাকলে কিছু শিশু এমনিতেই ভালো হয়ে যাবে। কিন্তু আমরা যদি এটিকে সমস্যা হিসেবে ধরি এবং বাবা-মা যদি এটা না বোঝেন তখন পরিবারের মধ্যে অশান্তি হতে পারে। শিশুদের যদি বড়রা সাহায্য না করেন তাহলে শিশুটি যখন বড় হয়, যখন চাকরিতে প্রবেশ করে, তখন অন্যের সঙ্গে হয়তো মিশতে সমস্যা হয়। বিভিন্ন জায়গায় সমস্যায় পড়ে। অনেক সময় তো মাদকও গ্রহণ করতে পারে বিষণ্ণতা থেকে। এসবের ফলে নিজের পরিবারের সঙ্গে তার সম্পর্ক ভালো হয় না।

যদি আমরা বলি কেন এডিএইচডি হচ্ছে। তার নির্দিষ্ট কারণ কেউ জানে না। অনেক ক্ষেত্রে ধারণা করা হয়, এ সমস্যার জন্য হয়তো বংশগত কারণ আছে। শিশুটি কোন পরিবেশে বড় হচ্ছে সেটিও গুরুত্বপূর্ণ।

যদিও আমাদের দেশে এখনো কোনো পরিসংখ্যান নেই এই রোগীর সংখ্যা নিয়ে। কিন্তু আমি মনে করি, এই সমস্যাটি অনেক বেড়েছে। যদি পারিপার্শ্বিক অবস্থার কথা বলি, তখন দেখি আগে হয়তো শিশুরা রবীন্দ্রনাথের গান শুনত এখন হয়তো তারা ধুমধাড়াক্কা কোনো গান শুনছে। সারাক্ষণ টেলিভিশন দেখলে বা কম্পিউটারে গেম খেললে এগুলো শিশুটিকে একটি বিশেষ দিকে আবদ্ধ করে রাখে। এর ফলেও এডিএইচডি হতে পারে। মস্তিষ্কেও এর থেকে সমস্যা হতে পারে।

প্রশ্ন : এই জাতীয় শিশু যখন আপনাদের কাছে আসে তখন কী করে থাকেন?

উত্তর : প্রথমে শিশুটিকে দেখি । বাবা-মা বললেই আমরা মেনে নেই না। চিকিৎসকরা শিশুটির সঙ্গে পরপর কয়েকদিন কথা বললেই বুঝতে পারেন সমস্যা আছে কি না। আর চঞ্চলতা যদি ছয় মাসের বেশি হয়, তখন এটাকে সমস্যা বলা যাবে। যদি এক মাস হয় বা কয়েক দিনের হয় তবে সেটিকে এডিএইচডি বলা যাবে না। জানতে হবে শিশুটির কেন এই অস্থিরতা হচ্ছে। এমন হতে পারে শিশুটির হয়তো খুব কাছের একজন কেউ মারা গেল, সে সময় সে খুব অস্থির হয়ে পড়েছে। তখন আমরা অভিভাবকদের বলি এটি সাময়িক। ঠিক হয়ে যাবে।

শিশুর মা যদি খুব দুশ্চিন্তা এবং উদ্বেগে ভোগেন, অথবা বাবা-মায়ের মধ্যে বোঝাপড়া ভালো নয়, তখন এই সমস্যাগুলো আপনাআপনি শিশুটির মধ্যে বৃদ্ধি পেতে থাকে। যখন এই ধরনের শিশুর চিকিৎসা করা হয়, তখন প্রথমে পরিবেশটি দেখতে হয়। সে ক্ষেত্রে অবশ্যই পরামর্শ (কাউন্সিলিং) নিতে হবে। শিশুদের এ ধরনের সমস্যা হলে তাদের বাইরের ফাস্ট ফুড না খাওয়ানোই ভালো।

শিশুটিকে ঘুমানোর আগে যদি ছড়া শোনানো যায়, গল্প বলা যায় , শারীরিক স্পর্শ দেওয়া যায় তখন এটি বেশ কাজে আসে। শিশুটির ভালো লাগে এমন মজার কাজ তাদের করতে দিতে হবে। তাহলে সে অনেকক্ষণ হয়তো সেটি করবে।

প্রশ্ন : আপনাদের পরামর্শ মেনে চললে কি শিশুটি পুরোপরি সুস্থ এবং স্বাভাবিক হয়ে উঠতে পারে?

উত্তর : অনেক শিশুর ক্ষেত্রে ওষুধ ব্যবহার করি। সাধারণ ভিটামিন ব্যবহার করি। কিছু ভিটামিন আছে খুব ভালো কাজ করে। ওষুধ সেবনের পাশাপাশি বাবা-মাকে পরামর্শ দেওয়া হয় শিশুটির সাথে তাঁরা কী ধরনের আচরণ করবেন। এগুলো মিলিতভাবে শিশুটিকে ভালো করে তোলে।