যে কারনে নারীদের তুলনায় পুরুষদের কিডনিতে পাথর জমার হার বেশি, দেখুন বিস্তারিত

কিডনিতে পাথর হওয়া বিরল কোনো রোগ নয়। যে কারোই কিডনিতে পাথর জমতে পারে। পানি কম খাওয়া, খাদ্যাভ্যাসের সমস্যা, অনিয়ন্ত্রিত জীবনযাপনের কারণে কিডনিতে পাথর হয়ে থাকে। সারা পৃথিবীর ১১ শতাংশ পুরুষ এবং ৬ শতাংশ নারীই এই সমস্যায় ভোগেন।

পরিসংখ্যান থেকেই পরিষ্কার, নারীদের তুলনায় পুরুষরা এই সমস্যায় বেশি ভোগেন। কিন্তু কেন পুরুষদের কিডনিতে বেশি পাথর জমে? কী বলছেন বিজ্ঞানীরা? এই প্রশ্নের উত্তর জানার আগে জেনে নেয়া দরকার, কেন কিডনিতে পাথর জমে। এর কারণগুলি কী কী?

>> মদ্যপান, অতিরিক্ত লবণ এবং মশলাপাতি দেওয়া খাবার নিয়মিত খেলে কিডনিতে পাথর জমার আশংকা বাড়তে পারে।

>> পানি কম খেলেও কিডনিতে পাথর জমে। পানি কিডনি থেকে ক্যালসিয়াম অক্সালেট বের করে দেয়। পর্যাপ্ত পানি না খেলে এই সমস্যা বাড়ে।

>> কিডনির পাথর মূলত ক্যালসিয়াম জমে তৈরি হয়। ক্যালসিয়াম অক্সালেট আছে, এমন খাবার যারা বেশি খান, তাদের কিডনিতে পাথর জমার আশংকা বাড়ে। এর মধ্যে রয়েছে খেজুর, বিভিন্ন ধরনের বেরি, কামরাঙার মতো ফল। এছাড়াও পালং শাক, বিট, গাজরেও প্রচুর ক্যালসিয়াম অক্সালেট আছে। এগুলো বেশি পরিমাণে খেলে কিডনিতে পাথর জমতে পারে।

পুরুষদের কিডনিতে পাথর জমার আশংকা বেশি কেন?

বিজ্ঞানীরা বলছেন, এর প্রধান কারণ পানি কম খাওয়া। পরিসংখ্যান বলছে, পুরুষরা নারীদের তুলনায় কম পানি খান। শরীরে পানির পরিমাণ কমে যাওয়া বা ডিহাইড্রেশনের সমস্যায় নারীদের তুলনায় পুরুষরা বেশি ভোগেন। আর সেই কারণেই তাদের কিডনিতে পাথর জমার আশংকা বাড়ে।

তবে এটিই একমাত্র কারণ নয়। বিজ্ঞানীরা বলছেন, মদ্যপান, জীবনযাত্রায় অনিয়মও পুরুষদের মধ্যে অনেক বেশি। আর সেই কারণেই তাদের কিডনিতে পাথর জমার আশংকা বেশি।