রান্নাঘরে হঠাৎ হাত পুড়ে ফোসকা হলে যা করবেন

রান্না করতে গিয়ে হাত পুড়ে ফোসকা,কী করবেন

রান্নার সময়টাতে অসাবধানতা বশত হাত পুড়ে যেতে পারে। গরম পানি বা গরম তেল ছিটকে কিংবা গরম কোনো পাত্রের হাতল ধরায় ত্বকের উপরিভাগ পুড়ে যেতে পারে। প্রচণ্ড জ্বালাপোড়া, আক্রান্ত স্থান লাল হয়ে যাওয়া, সেখানে ফোসকাও পড়তে পারে।

রান্না করতে গিয়ে হাত পুড়ে ফোসকা, কী করবেন

রান্না করতে করতে এই রকম ছোটখাটো ছ্যাঁকা খাওয়া, ফোসকা পড়ার সমস্যা কমবেশি সব গৃহিণীর হয়ে থাকে। কিন্তু সব সময় তো হাতের কাছে মলম জাতীয় প্রতিষেধক থাকে না। তাই ভরসা করতে পারেন ঘরোয়া চিকিৎসাতে। তাহলে জেনে নিন কোন কোন ঘরোয়া চিকিৎসা এক্ষেত্রে কাজে লাগবে।

বরফ

আজকাল ডিপ ফ্রিজে বরফের ট্রে-তে বরফ তো থাকেই। গরম চা, পানি কিংবা ভাতের ফ্যান হাতে পড়ে গেলে জ্বালাভাব কাটাতে চোখ বুজে ব্যবহার করুন বরফ। তবে প্রথমেই বরফ দেবেন না। আগে ঠাণ্ডা পানি পোড়া জায়গাটা কিছুক্ষণ ভিজিয়ে রাখুন। তারপর একটি কাপড়ে করে বরফ মুড়ে পোড়া জায়গায় বেঁধে রাখুন। মিনিট ১৫ ধরে সেই পোড়া জায়গায় বরফ সেঁক দিলে জ্বালা ভাব কমবে।

অ্যালোভেরা জেল

যে কোনো ক্ষত বা পোড়া ভাব কমাতে অ্যালোভেরা জেলের জুড়ি নেই। অনেকেই বাড়িতে অ্যালোভেরা গাছ লাগান। ত্বকে জ্বালাভাব কমাতে অ্যালোভেরা পাতা থেকে জেল বার করে নিন। তারপর যে অংশে ছ্যাঁকা খেয়েছেন, সেখানে মলমের মতো করে ৩০ মিনিট মালিশ করুন। উপকার পেতে সঙ্গে ব্যবহার করবেন নারকেল তেল। কয়েকদিন নিয়মিত লাগালেই দাগ উধাও হবে।

লিকার চা

ত্বক পুড়ে গেলে চটজলদি জ্বালাভাব কমাতে পারে লিকার চা। ৩-৪টি লিকার চায়ের টি-ব্যাগ এক কাপ ঠাণ্ডা পানির মধ্যে ডুবিয়ে রাখুন। সঙ্গে ছড়িয়ে দিন কিছু বরফ কুঁচি। কিছুক্ষণ পর সেই লিকার চা একটি তুলার সাহায্যে ত্বকের পোড়া অংশে অল্প অল্প করে লাগাতে থাকুন। দেখবেন উপকারটা খুব জলদি অনুভব করছেন।