এই সকল সাধারন খাবারই আপনার হাড়কে আরও শক্ত রাখবে

হাড় শক্ত রাখতে যেসব খাবার খাবেন

শরীরের হাড়ে যখন খনিজে ঘনত্বের অভাবে দুর্বল হয়ে যায়, তখন আমরা অস্টিওপোরোসিস রোগসহ বিভিন্ন ধরনের রোগে আক্রান্ত হই। সে কারণে শরীরের কোনো কোনো হাড় ভেঙে যায় বা চির ধরে। এবার জেনে নিন যেসব খাবার খেলে শরীরের হাড় শক্ত হবে।

কলায় প্রচুর ম্যাগনেসিয়াম আছে। তাছাড়া এই ফল হাড় ও দাঁতের গঠন সুগঠিত করে। ডায়েটে রোজ একটি করে কলা থাকলে হাড়ের বিভিন্ন রোগ থেকে দূরে রাখে।

ক্যালসিয়ামে পরিপূর্ণ পালংশাকে হাড় ও দাঁতের গঠন মজবুত হয়। রোজ এক কাপ সিদ্ধ পালংশাকে শরীরে ক্যালসিয়ামের প্রয়োজন মেটে ২৫ শতাংশ পর্যন্ত। পালং শাকে প্রচুর আয়রন, ভিটামিন এ এবং ফাইবারও আছে।

বাদামে থাকা ক্যালসিয়াম, ম্যাগনেসিয়াম হাড়ের স্বাস্থ্যের জন্য দরকারী। হাড়ের ক্যালসিয়াম ধারণ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে ম্যাগনেসিয়াম।
হাড়ের সুস্বাস্থ্যের কথা ভেবে ডায়েটে রোজ রাখুন ফ্যাট ফ্রি দুধ ও টক দই। ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রিত থাকলে খেতে পারেন চকোলেটের মতো ডেইারি প্রডাক্টসও।

হাড়ের সুস্বাস্থ্যের কথা ভেবে ডায়েটে রোজ রাখুন ফ্যাট ফ্রি দুধ ও টক দই। ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রিত থাকলে খেতে পারেন চকোলেটের মতো ডেইারি প্রডাক্টসও।

ভিটামিন সি-এর পাশাপাশি কমলালেবুতে প্রচুর ভিটামিন ডি-ও আছে। ফলে হাড় মজবুত করতে প্রয়োজনীয় এই ফল। বলা হয়, ডায়েটে রোজ কমলালেবু থাকলে অস্টিওপোরোসিস-এর আশঙ্কা কমে।

পেঁপে ক্যালসিয়ামে ভরপুর। ১০০ গ্রাম পেপেতে ২০ মিলিগ্রাম ক্যালসিয়াম আছে। সকালে রোজ কলা না খেয়ে মাঝে মাঝে স্বাদ বদলাতে রাখতে পারেন পাকা পেঁপে।

ওমেগা থ্রি-র গুরুত্বপূর্ণ উৎস মাছ আমাদের ডায়েটে সব সময়েই অন্য জায়গা পেয়ে এসেছে। কিন্তু জানেন কি স্যামন, টুনার মতো তৈলাক্ত মাছ হাড়ের শক্তিও বৃদ্ধি করে। তাই হাড় ভালো রাখতে মাছের ঝোল, যেভাবে খুশি মাছ খান।