আপনার সন্তান কি মাঝেমধ্যেই রাতে জেগে ওঠে? জেনে নিন এর কারণ ও আপনার করণীয়

সারাদিনের খাটখাটনির পর রাতে শুয়েছেন, সবে চোখের পাতা বন্ধ হয়েছে, এমন সময় তীব্র কান্নার আওয়াজে ধড় মড় করে উঠে বসলেন। আপনার ছোট শিশুর ঘুম ভেঙে গিয়েছে। অতএব এখান তাকে কোলে করে বসে থাকা, তার সঙ্গে খেলা করা এবং আবার ঘুম পাড়ানোর চেষ্টা করতেই করতেই সকাল হয়ে যায়। সবে যারা বাবা মা হয়েছেন, এই অভিজ্ঞতা তাঁদের প্রায় রোজই হয়ে থাকে।

এখন কথা হল আপনার সন্তান দিনের বেলা তার ইচ্ছেমতে যে কোনও সময়ে ঘুমিয়ে নিয়ে নিজের ঘুম পূরণ করে নিতে পারবে। কিন্তু আপনারা তো আর দিনের বেলা যে কোনও সময় ঘুমতো পারবেন না। ডাক্তাররা বলছেন যে মাঝে মধ্যে শিশুর রাতে জাগার মধ্যে অস্বাভাবিকত্ব নেই। কিন্তু এটাই যদি তার প্রতিদিনের অভ্যেস হয়, তাহলে শিশুরোগ বিশেষজ্ঞের কাছে নিয়ে যাওয়া উচিত। কারণ রাতে শিশুর জাগার পেছনে কয়েকটি কারণ কাজ করতে পারে।

* অনেক সময় শিশু এমন পরিস্থিতিতে ঘুমিয়ে পড়ে, যা সে কিছুক্ষণ পরে আর পায় না। তখন তার ঘুম ভেঙে যায়। আপনি যদি শিশুকে কোলে নিয়ে ঘুম পাড়ান, আর ঘুমিয়ে পড়লে বিছানায় শুইয়ে দেন, তাহলে কোলের আরাম না পাওয়ার কারণে কিছুক্ষণ পরে ওর ঘুম ভেঙে যেতে পারে। তাই শিশুকে কোলে নিয়ে নয়, বিছানায় শুইয়ে ঘুম পাড়ান।

* অনেক সময় রাতে শিশুর ডায়াপার বদল করার সময় তার ঘুম ভেঙে যেতে পারে। শিশুটির দাদা বা দিদি একই বিছানায় শুয়ে থাকলে নিজের অজ্ঞাতলারে সে তার ছোট ভাই বা বোনটির ঘুমে ব্যাঘাত ঘটাতে পারে।

* কখন খিদে পেয়েছে তা বুঝতে পারে না সদ্যোজাত শিশুরা। তাই সে ঘুমের মধ্যেও মায়ের স্তন বা ফিডিং বোতল খোঁজে অনেক সময়। সেটা না পেলে তার অস্বস্তি হতে থাকে, তখন ঘুম ভেঙে গিয়ে শিশু কেঁদে উঠতে পারে। আরেকটু বড় হলে তার খাওয়ার সময়ের মধ্যে ব্যবধান বাড়বে। তখন এই অভ্যেসটাও আস্তে আস্তে কেটে যাবে।

* আপনার শিশুর রাতে জাগার কারণ যদি এই একটিও না হয়, তাহলে হতে পারে তার কোনও শারীরিক সমস্যা আছে। ঘন ঘন কাশি হলে শিশুর ঘুম ভেঙে যায়। অ্যাসথমা থাকলেও রাতে বারবার ঘুম ভেঙে যেতে পারে শিশুর। এছাড়া অ্যাসিড রিফ্লাক্স হলে রাতে পেটে ব্যাথা এবং বমি হতে পারে। শিশুর রাতে ঘুম ঠিকমতো না হওয়ার পেছনে স্লিপ অ্যাপনিয়াও কাজ করতে পারে। তাই শিশু নিয়মিত ভাবে রাতে জাগলে একবার ডাক্তার দেখিয়ে নেওয়া ভালো।