এই সকল প্রাথমিক লক্ষণ গুলো ১০ টি গুরুতর রোগ শনাক্ত করতে সাহায্য করবে

কত রকম রোগ হয় মানুষের। সবকিছুর লক্ষণ বা উপসর্গ আমাদের জানা থাকার কথা না। কিন্তু কিছু কিছু রোগের লক্ষণ জেনে রাখা উচিৎ আমাদের। এতে অনেক গুরুতর অসুখের বিছানায় পড়ার হাত থেকে যেমন বাঁচা যায়, তেমনি ক্ষেত্র বিশেষে জীবনও রক্ষা হয়।

আমরা আপনার সামনে ১০টি গুরুতর রোগ শনাক্ত করার লক্ষণ হাজির করতে যাচ্ছি যা ভুলেও এড়িয়ে যাবেন না। আসুন জেনে নেই রোগগুলোর লক্ষণ এবং উপসর্গগুলো।

১. ডায়াবেটিস

১. ঘন ঘন প্রস্রাব,

২. কোনো কারণ ছাড়াই ওজন কমে যাওয়া বা বৃদ্ধি পাওয়া,

৩. দৃষ্টি ঘোলা হয়ে যাওয়া,

৪. বারবার পিপাসা পাওয়া,

৫. খিদে লেগেই থাকা,

৬. সহজে ক্ষত নিরাময় না হওয়া,

৭. ক্লান্তি

৮. হাতে অসাড়তা এবং ব্যথা

২. ত্বকের ক্যান্সার

১. পুরু ও লাল হয়ে যাওয়া ত্বকের উপর রূপালি আঁশ

২. ঘাড় ও মুখমণ্ডল লাল হয়ে যাওয়া

৩. জন্ডিস

৪. নতুন আঁচিল

৫. ত্বকের ঘা না শুকানো

৬. আঁচিল ও তিলের পরিবর্তন।

৩. মাংসপেশি বা জয়েন্টের অসুখ

১. অবিরাম মাংসপেশিতে ব্যথা

২. অসাড়তা অথবা ঝিঝি ধরা

৩. জয়েন্ট ফুলে যাওয়া, প্রদাহ হওয়া, শক্ত হয়ে যাওয়া অথবা লাল হয়ে যাওয়া

৪. যেকোনো জয়েন্টের সচলতা সীমিত হয়ে আসা।

৪. ফুসফুসের রোগ

১. কফের সাথে রক্ত যাওয়া

২. এক মাস বা তারও বেশি দিন ধরে কাশি থাকা

৩. শ্বাসপ্রশ্বাসে সমস্যা হওয়ায়

৪. শ্বাস করতে কষ্ট হওয়া

৫. এক মাস বা তারও অধিক সময় বুকে ব্যথা থাকা

৬. বুকের ভিতর শব্দ হওয়া

৭. এক মাস বা তাও অধিক সময় অতিরিক্ত কফ উৎপন্ন হওয়া।

৫. স্তনের রোগ

১. স্তনে অস্বাভাবিক অনুভূতি এবং ব্যথা

২. নিপল অথবা স্তনের ত্বক পরিবর্তন হওয়া

৩. স্তনের কাছাকাছি অথবা স্তনেই পিণ্ড অনুভব করা

৪. বগলের নিচে পিণ্ড অনুভব করা

৫. নিপল থেকে পুঁজ বের হওয়া।

৬. নারীদের প্রজনন স্বাস্থ্যের সমস্যা

১. খুব ব্যথাযুক্ত ঋতুস্রাব হওয়া

২. নিন্মাঙ্গে চুলকানি

৩. ঘন ঘন প্রস্রাব

৪. পেট বা কোমরে প্রচণ্ড ব্যথা

৫. যোনি থেকে অস্বাভাবিক ক্ষরণ

৬. অসময়ে ঋতুস্রাব বন্ধ হওয়ে যাওয়া বা অতিরিক্ত রক্তপাত হওয়া।

৭. হজম প্রক্রিয়া এবং পাকস্থলীর অসুখ

১. পাতলা পায়খানা

২. পায়খানায় রক্ত যাওয়া

৩. কালো পায়খানা

৪. পায়খানা ধরে রাখার ক্ষমতা হারানো

৫. রক্তবমি

৬. পায়খানায় অস্বাভাবিকতা

৭. পায়ু পথে রক্ত যাওয়া

৮. বুক জ্বালাপোড়া করা

৯. বদহজম

১০. কোষ্ঠকাঠিন্য।

৮. মূত্র থলির সমস্যা

১. ব্যথাযুক্ত অথবা ঘন ঘন প্রস্রাব

২. প্রস্রাবে রক্ত যাওয়া

৩. রাতে বিছানা ভিজানো

৪. প্রস্রাব ধরে রাখতে না পারা

৫. রাতে অনেক বার প্রস্রাব করা।

৯. খাওয়া এবং ওজনজনিত সমস্যা

১. শারীরিক বিকৃতি হওয়া

২. পানি স্বল্পতা

৩. ক্লান্তি

৪. বিষণ্ণতা

৫. বমি

৬. অতিরিক্ত খিদে

৭. অনাহার

৮. অত্যধিক ওজন বা ওজন হ্রাস

৯. অতিরিক্ত পিপাসা।

১০. ডিপ ভেইন থ্রোম্বসিস

১পা ফুলে যাওয়া, কখনো হাতও ফুলে উঠতে পারে

২. পা অথবা হাত ব্যথা

৩. পা অথবা হাতে খিঁচুনি

৪. ত্বকে নীলাভ অথবা লালচে বিবর্ণতা

৫. পা অথবা হাত গরম হয়ে থাকা

বি:দ্র: মনে রাখবেন, তথ্যমূলক এই লেখাটি শুধু মাত্র আপনাকে সতর্ক করার জন্য। তাই পেশাদার পরামর্শ এবং পরীক্ষা করানোর জন্য অবশ্যই ডাক্তার দেখাতে হবে।

আপনার দেহের কথা কি শোনেন? শেষ কবে ডাক্তার দেখিয়েছিলেন?