জেনে নিন শ্বেতী হবার কারণ এবং এই সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে যা যা করবেন…

প্রথমেই বলে নেওয়া ভাল শ্বেতী ছোঁয়াচে নয়। কারর গায়ে শ্বেতী থাকলে তাঁকে স্পর্শ করলে যে আপনারও হয়ে যাবে এই ভ্রান্ত ধারণা দূর করুন। মনে রাখবেন, এটি কোনও ভয়াবহ রোগ নয়। শ্বেতী নিয়ে পর্যাপ্ত জ্ঞান না থাকায়, অকারণেই অনেকে আতঙ্কে থাকেন। সামাজিক পরিস্থিতির কারণে মানসিক অবসাদ ঘিরে ধরে তাঁদেরকে। তাই জেনে নিন শ্বেতী কী? কেন হয়? কী করবেন?

বৈজ্ঞানিক ব্যাখ্যা

ত্বকের মধ্যের মেলানোসাইট কোষে থাকে মেলানিন, যা ত্বকের স্বাভাবিক রঙের ভারসাম্য রক্ষা করে। মেলানিনের ক্রিয়াকলাপে বাধা সৃষ্টি হলে বা ভারসাম্য নষ্ট হলেই দেখা দেয় শ্বেতী। শ্বেতী বংশগতভাবেও হয়। প্রতি ১০০ জন শ্বেতী রোগীর মধ্যে ৩০ জনের ক্ষেত্রেই শ্বেতী হয় বংশগত ধারায়, মাতৃকুল বা পিতৃকুলের কারও না কারও থেকে জিনের প্রভাবে। বাকি ৭০ শতাংশের ক্ষেত্রে শ্বেতী সাদা দাগ ছড়াতে থাকে নিজস্ব কারণে, যার মূলে রয়েছে মেলানিনের কারসাজি! বর্তমানে সারা বিশ্বে প্রায় ১০ কোটি মানুষ শ্বেতীতে আক্রান্ত। শোনা যায়, প্রয়াত শিল্পী মাইকেল জ্যাকসনও এই রোগে আক্রান্ত ছিলেন।

শ্বেতী প্রথম কোথায় দেখা যায়?

সাধারণত মুখমণ্ডল, কনুই, বুকেই প্রথমে শ্বেতী দেখা দেয়। আবার শ্বেতী চোখের পাশ দিয়ে, নাকের দুপাশে বা ঠোঁটের কোণ বা উপর দিয়েও শুরু হয়।

সংক্রামক নয়

শ্বেতী ছোঁয়াচে নয়। ত্বকের নির্দিষ্ট জায়গায় যেখানে ত্বকের মধ্যে মেলানিনের ভারসাম্য নষ্ট হয়ে যায়, সেখানে দেখা দেয় শ্বেতী। কিন্তু সারা শরীর জুড়ে যদি এই সমস্যা থাকে তাহলে এমনভাবে ছড়িয়ে পড়ে যে বোঝাই না গায়ের রং আসলে কী ছিল! শরীরে যদি শ্বেতীর সম্ভাবনা থাকে তাহলে ১০ বছর বয়স থেকে তা দেখা দেবে।

শ্বেতী হলে কী করবেন?

চিকিৎসকদর পরামর্শ নিন। যে মলম পেসক্রাইব করবে তা নির্দিষ্ট সময়ে নিয়ম মেনে রোজ লাগান। সম্পূর্ণ সেরে ওঠা সময় সাপেক্ষ। শুরু থেকেই পরিচর্যায় থাকতে হবে। পাঞ্চ গ্রাফটিং করে শ্বেতী সরিয়ে ফেলা যায়। যত অল্প বয়সে শ্বেতীর চিকিত্‍সা করা যায় তত ভাল। ডায়াবেটিস, হাইপার থাইরয়েড যাঁদের রয়েছে, তাঁদের শ্বেতী হওয়ার প্রবণতা বেশি থাকে।

শ্বেতী দেখা দিলে কোন কোন খাবারের থেকে দূরে থাকবেন?

মদ্যপান বন্ধ। ফলের মধ্যে আঙুর,কমলালেবু, ব্লুবেরিজ, গুজবেরিজ, আঙুর, আচার, কমলালেবু,বেদানা, পিয়ারা, ব্লুবেরিজ, গুজবেরিজ, খাবেন না। এছাড়া,দই, মাছ, সমুদ্রের মাছ, কাঁচা টমেটো, কাঁচা রসুন, জাঙ্ক ফুড, কফি, চকোলেট,তেঁতুল খাওয়া উচিত নয়।