মাইগ্রেন ছাড়াও একাধিক কারণে মাথাব্যথা হয়, সঠিকভাবে নির্ণয় করে চিকিৎসা করুন

মাথাব্যথা মানে শুধুমাত্র মাইগ্রেন নয়। একাধিক কারণে মাথাব্যথা হয়ে থাকে। কেন মাথাব্যথা হচ্ছে তার কারণ সঠিকভাবে নির্ণয় করতে পারলে এ ব্যথা উপশমের চিকিৎসা সম্ভব হতে পারে। আরাম পাবেন আপনি।

১. মাথার একপাশে: মাইগ্রেন

যদি মাথাব্যথা আপনার মাথার একপাশে (মাথার বামপাশ অথবা ডানপাশ) হয় এবং মাথায় স্পন্দন অনুভূত হয়, তাহলে তা মাইগ্রেনের লক্ষণ হতে পারে। মাইগ্রেনে ভোগার এক ডজনেরও বেশি কারণ রয়েছে, পরিত্রাণ পাওয়া খুব একটা সহজ নয়। মাইগ্রেনের ব্যথা তীব্র হয় এবং কার্যক্রমে ক্ষতিকর প্রভাব ফেলে। যত দ্রুত সম্ভব মাইগ্রেনের ব্যথা থেকে মুক্তি পাওয়ার জন্য কাজ থেকে বিরত থাকতে এবং বিশ্রামের প্রয়োজন হয়। এই ব্যথা নির্মূল হয়না। তবে সতর্ক ও প্রর্ববেক্ষণের মধ্যেই থাকা উচিত।

২. মাথার চারদিক জুড়ে: টেনশন হেডেক

মানসিক চাপে মাথাব্যথাকে টেনশন-টাইপ হেডেক বা দুশ্চিন্তাজনিত মাথাব্যথা বলা হয়। এ ব্যথায় আঁটসাট যন্ত্র মাথার চারদিকে চেপে আছে বলে মনে হয়।

৩. মুখমণ্ডলে: সাইনাস হেডেক

যদি আপনি চোখে এবং গালে চাপ অনুভব করেন, তাহলে তা সাইনাস হেডেকের লক্ষণ বলে ধরে নিতে পারেন। কিন্তু প্রকৃতপক্ষে সাইনাস হেডেক খুব বিরল এবং প্রায়সময় তা আসলে মাইগ্রেন, যার কারণে মুখমণ্ডলে ব্যথা হতে পারে।

৪. হঠাৎ মাথার যেকোনো অংশে: থান্ডারক্ল্যাপ হেডেক

থান্ডারক্ল্যাপ হেডেকের ক্ষেত্রে মাথার ভেতর বজ্রাঘাত অনুভূত হয়। এ ব্যথা তীব্র হয়, কমপক্ষে পাঁচ মিনিট থাকে এবং আপনি হয়তো জানতেও পারবেন না কেন তা হচ্ছে। মাথাব্যথার প্রকারভেদের মধ্যে এ ধরনের মাথাব্যথা বিপদাশঙ্কার নির্দেশ করতে পারে। আপনার যদি এরকম মাথাব্যথা হয়, তাহলে ডাক্তারের শরণাপন্ন হন।

৫. চোখের পিছনে: ক্লাস্টার হেডেক

যদি আপনি অনুভব করেন যে চোখের পিছন থেকে কোনো কিছু আপনাকে খোঁচা দিচ্ছে, তাহলে তা ক্লাস্টার হেডেকের লক্ষণ হতে পারে। এই মাথাব্যথাকে সুইসাইড হেডেকও বলে। কারণ এতে ব্যথা খুব তীব্র হয়। এটি প্রায়ক্ষেত্রে নারীদের চেয়ে পুরুষদের বেশি প্রভাবিত করে। ব্যথার সঙ্গে চোখে লাল ভাব, চোখ থেকে জল পড়া, ক্লান্তি আসবে।

৬. মাথার উপরিভাগে বা মুখমণ্ডলের উপরিভাগে: অ্যালার্জি হেডেক

অ্যালার্জি হেডেক সাইনাসের সঙ্গে সম্পর্কিত হলেও তা ঋতুভিত্তিক হয়ে থাকে সঠিকভাবে এ সমস্যা শনাক্ত করতে ডাক্তার থেকে ডায়াগনোসিস করা উচিত।

৭. কপাল বা মাথার একপাশে: এয়ারপ্লেন হেডেক

আকাশপথে ভ্রমণের সময় মাথার একপাশে ব্যথা অনুভূত হতে থাকে, যাকে এয়ারপ্লেন হেডেক বলে। আকাশপথে ভ্রমণ খুব একটা কঠিন না হলেও গবেষণায় পাওয়া গেছে যে, প্রতি ১২ জনের একজন লোক এয়ারপ্লেন হেডেকে ভোগে।

৮. মাথার যেকোনো অংশে ব্যথা

যদি কাজকর্মের সময় বা পরে শ্রমসংক্রান্ত মাথাব্যথা হয়ে থাকে। ব্যায়াম বা অনুশীলন কিংবা উত্তেজনা বা কামোত্তেজনায় বেড়ে যেতে পারে। এতে তীব্র মাথাব্যথা, এক-পার্শ্বস্থ মাথাব্যথা, স্পন্দিত মাথাব্যথা, একটানা মাথাব্যথায় বমি বমি ভাব দেখা যায়।