গোছলের সময় কানে পানি ঢুকেছে? জেনে নিন কানের পানি বের করার কয়েকটি দারুণ ঘরোয়া উপায়

কানটা কেমন ‘জল জল’ করছে। মনে হচ্ছে কানের ভিতরে কী একটা তরল পদার্থ নড়ছে। সাঁতার কাটা, শ্যাম্পু করা কিংবা সমুদ্রে স্নান করার পর এই সমস্যা প্রায়ই দেখা যায়। সাদা বাংলায় একেই বলে ‘কানে জলে ঢোকা’। প্রবাদ বাক্য নয়। সত্যি সত্যিই কানে জল ঢোকা। শিশুদের ক্ষেত্রে এই সমস্যা একটু বেশিই দেখা দেয়। স্নান করা বা ঝিনুক দিয়ে দুধ জল খাওয়ার সময় কানে জল ঢুকেই থাকে।

*এভাবে কানের ভিতর জল জমতে জমতে সংক্রণ সৃষ্টি হয়। ক্রমে এর ফল হতে পারে মারাত্মক। একটু সজাগ থাকলে কানে জল ঢোকা বন্ধ করা যায় বটে, কিন্তু কান থেকে জল বের করার কৌশল জানাটাও খুব জরুরি।

কান থেকে জল বের করুন ঘরোয়া উপায়ে

*কানে জল ঢুকলে প্রথমেই ঘাড় কাত করে শুকনো কাপড় সরু করে ঢুকিয়ে আলতো করে নাড়ুন। প্রাথমিকভাবে এতেই ভালো কাজ দেয়। ২-৪ বার একইরকমভাবে কান ঝেরে নিন। স্বস্তি পাবেন।

*যে কানে জল ঢুকেছে সেই দিকে কাত হয়ে শুয়ে পড়ুন। কিছুক্ষণ এভাবেই শুয়ে থাকুন। মাধ্যাকর্ষণের কারণে নিজে থেকে জল বেরিয়ে যাবে। একটু সময় লাগবে এই যা।

*হাতের তালু দিয়ে কানের ফুটোতে জোরে চাপ দিতে থাকুন। বার কয়েক এরকম করলেই ধীরে ধীরে দেখবেন হাতের তালুতে জল বেরিয়ে আসছে। সঙ্গে ঘাড়টিও কাত করে নেবেন। আরও ভালো ফল পাবেন।

*গরম সহ্য করতে পারলে হেয়ার ড্রায়ার কানের কাছে কয়েক সেকেন্ডের জন্য রাখতে পারেন। গরম হাওয়ায় কানে ঢুকলে জল বাষ্পীভূত হয়ে বেরিয়ে আসবে। তবে এই পদ্ধতিতে একটু ঝুঁকি আছে। একান্তই যদি এই পদ্ধতি নেন তাহলে ড্রায়ারের তাপমাত্রা কম রাখবেন।

অ্যালকোহল এবং ভিনিগারের মিশ্রনের ইয়ার ড্রপ ব্যবহার করতে পারেন। এতে জল সহজেই উবে যায়। এবং অ্যালকোহল বা ভিনিগার তো প্রাকৃতিক নিয়মেই উবে যাবে। তাছাড়া অ্যালকোহলের প্রভাবে কানের মধ্যে গজিয়ে ওঠা ব্যাকটেরিয়া সহজে নির্মূল হয়। ফলে সংক্রমণ হওয়ার সম্ভাবনা একেবারে কমে যায়।

**এক্ষেত্রে সমপরিমাণ অ্যালকোহল এবং ভিনিগার নিন। একটি পরিষ্কার স্টেরালাইজড্ ড্রপারের সাহায্যে মিশ্রণটি তিন থেকে চার ফোটা কানের ভিতর ঢেলে দিন। বাইরে থেকে হাতের তালু দিয়ে কানের অংশ আলতো করে মাসাজ করে নিন।৩০ সেকেন্ড পর ঘাড় কাত করুন। দেখবেন সমস্ত তরল বাইরে বেরিয়ে আসছে।

*তবে কানের বাইরে কোনও সংক্রমণ থাকলে এই পদ্ধতি একেবারেই চেষ্টা করবেন না। কোনও ধাতু বা সরু জিনিসের সাহায্যে কানে মিশ্রণ ঢালবেন না। ড্রপারটি যেন পরিচ্ছন্ন এবং জীবাণু মুক্ত থাকে সেদিকে নজর রাখবেন। শুধুমাত্র রাবিং অ্যালকোহল এবং ভিনিগারই ব্যবহার করবেন।

*অলিভ অয়েল উষ্ণ গরম করেও কানে দিতে পারেন। তবে সেক্ষেত্রে তাপমাত্রার দিকে খেয়াল রাখতে হবে। ভেষজ গুণ সম্পন্ন অলিভ অয়েল কানের ভিতরের জল বের করে দিতে যেমন সাহায্য করে তেমনই কানের ভিতরের সংক্রমণ রোধ করে। পাত্রে অলিভ অয়েল সামান্য গরম করে স্টেরালাইজড্ ড্রপার দিয়ে কানে দিন। কাত হযে মিনিট দশেক শুয়ে থাকুন। দেখবেন কানের জল ধীরে ধীরে বেরিয়ে আসছে। আপনিও স্বস্তি পাচ্ছেন।

*যে কানে জল ঢুকেছে সেই কাপে ভাপ নিন। একটি পাত্রে জল গরম করে নিন। কানটি পাত্রের কাছে আনুন।গরম বাষ্প যেন কানের ভিতর প্রবেশ করে। মাথা টাওয়াল দিয়ে ঢেকে নেবেন। মিনিট দশেক এভাবে ভাপ নিলে কানের জল বের হয়ে যায়।

*কানে জল ঢুকে গেলে চুইংগাম চিবোতে থাকুন। মাংসপেশীর নড়াচড়ায় কানের জল আপনা থেকেই বেরিয়ে আসবে।

*হাত দিয়ে নাক টিপে ধরুন। মুখ শক্ত করে বন্ধ রাখুন। জোর করে এবার নিঃশ্বাস বের করে দেওয়ার চেষ্টা করুন। নাক এবং মুখ বন্ধ থাকায় বাতাস বেরোতে পারবে না। ফলে সেই বাতাস কান দিয়ে বেরোনোর চেষ্টা করবে। তখনই বাতাসের ধাক্কায় কান থেকে জল বেরিয়ে যাবে।

**তবে মনে রাখবেন ঘরোয়া উপায় কিন্তু সাময়িক স্বস্তি দেয়। বড়সড় সমস্যায় অবশ্যই চিকিৎসকের পরামর্শ নিন। তাঁর প্রেসক্রাইব করা ওষুধই ব্যবহার করুন।