অভাব মেটানোর জন্য একসময় বারে গান গাইতেন! প্রয়াত খলনায়ক সৌমিত্রর জীবনের গল্প শুনলে চোখে পানি চলে আসবে

পর্দার জনপ্রিয় ভিলেন তিনি। তার কাজ ছিল বড়োলোকের বাবার সুন্দরী নায়িকার পিছনে পড়ে থাকা,অথবা নায়কের সঙ্গে সম্মুখ সমর। ফর্সা গোলগাল চেহারার সৌমিত্র বন্দোপাধ্যায় মানেই বাঙালির তটস্থ হওয়ার যোগার। কিন্তু জানেন কি একসময় বারে গান গেয়ে উপার্জন করতেন।

বেশ ধনী পরিবারের ছেলে সৌমিত্র বন্দোপাধ্যায়। ছেলেবেলা থেকে ইংরেজি মাধ্যম স্কুলে পড়াশোনা করেছেন। সেই ছেলে কিনা অভিনয় করবে? মাথায় হাত বাবা মায়ের। কিন্তু প্রথম কয়েকটা ছবিতে ছোটখাটো রোল পেলেও তেমন জমাতে পারেননি।বাধ্য হয়ে যোগ দেন একটি বারে। কিশোর কুমারের গানের প্রতি ছিল বিশেষ টান। তাই ছোটখাটো শো করেছিলেন আগেই। কিন্তু সেই অভিজ্ঞতা কাজে লাগলো না।

শেষে ১৯৮২ সালের ত্রয়ী সিনেমার মধ্য দিয়ে তার নাম জানতে পারেন মানুষ। সেখান থেকেই শুরু এরপর গুরুদক্ষিণা, মঙ্গলদীপ, হীরক জয়ন্তীর মত কালজয়ী সিনেমা মানেই খলনায়ক সৌমিত্র। অনেকে আবার তাকে ভানু বন্দোপাধ্যায়ের ছেলে বলে মনে করতেন।

কিন্তু এত সাফল্য পেলেও মদের নেশায় বুদ হয়ে থাকতেন তিনি। প্রথমে ইন্দ্রানী নামের এক সঙ্গীতশিল্পী কে বিয়ে করলেও সেই বিয়ে টেকেনি। পরে গাঁটছড়া বাঁধেন সহ অভিনেত্রী রীতা কয়রালের সাথে। কিন্তু বিচ্ছেদ হয়ে যায় তাদের। মাত্র ৪৬ বছর বয়সে জন্ডিসে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হয় অভিনেতার। স্টেজ শো করতে গেলেই মাটির মানুষের সঙ্গে মিশে যেতেন পর্দার খলনায়ক সৌমিত্র।