এই করোনাকালে জিম বন্ধ, তাই বাড়িতে থেকেই ওজন কমাতে মেনে চলুন এই ম্যাজিক ডায়েট

ওজন যে কমছে তা শরীরই জানিয়ে দেবে৷ তবে অপ্রস্তুত অবস্থায় হুট করে শুরু করবেন না৷ প্রস্তুতি নিয়ে তবে কাজে নামুন৷ এনার্জি পাবেন, ঘুম হবে, ফিরে আসবে ত্বকের ঔজ্জ্বল্য৷ এক মাসে ৫–৭ কেজি ওজন কমে যাবে অনায়াসে।

অনেক রকম ডায়েটের নাম তো শুনেছেন। তবে ওজন কমাতে নাকি ভালো কাজ দেয় এই ডায়েট। এই ডায়েটের ক্ষেত্রে যিনি ডায়েট করছেন, তাঁর এক মাসের মধ্যেই অনেকটা ওজন কমে যাবে। সঠিক ভাবে সব নিয়ম মানলেই হাতেনাতে ফল পাওয়া যাবে। ডায়েটের এই কৌশলকে বলা হয় ‘হোল থার্টি ডায়েট’। ওজন তো কমবেই, আর এই ওজন কমানোর সঙ্গে খাপ খাইয়ে নিতে গিয়ে পেটের গোলমালও হবে না। এনার্জি পাবেন, ঘুম হবে, ফিরে আসবে ত্বকের ঔজ্জ্বল্য৷ এক মাসে ৫–৭ কেজি ওজন কমে যাবে অনায়াসে।

তবে হ্যাঁ, এই ডায়েট করলে কিন্তু দাঁড়ি টানতে হবে ভুলভাল খাওয়ার অভ্যাস। নরম পানীয় বা অ্যালকোহলের বদভ্যাসে ডুব দিলেও, আপনাকে থেমে থাকতে হবে শুধুই লেবু–জলে। সবাই চিকেন–মাটন খেলেও আপনাকে স্যালাড ও ফ্যাট ছাড়া খাবারে৷ করোনাকালে বাড়িতে বলে মেদ বেড়ে গেলে ওজন দ্রুত ছেঁটে ফেলতে এক মাস ভরসা রাখুন হোল ফুড ডায়েটে।

হোল থার্টি ডায়েট আসলে কী

এই ডায়েটের পরিকল্পনাটি করেন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মেলিসা হার্টভিগ আরবান দ্বারা প্রতিষ্ঠিত। আপনি যদি পুরো ৩০ টি ডায়েট পরিকল্পনার মাধ্যমে ফিট থাকতে চান, তবে আপনাকে ৫ বা ১০ দিনের জন্য নয়, পুরো মাস ধরে এটি অনুসরণ করতে হবে। তবে এটি স্বাস্থ্যকর ও ওজন কমানোর জন্য খুব কার্যকর। এই ডায়েটে চোখে পড়ার মতো ওজন কমবে কোনও অসুস্থতা ছাড়াই।

এই ডায়েটে বাতিল খাবার কী কী

এই ডায়েট প্ল্যানে চিনি এবং তৈরি জিনিস গ্রহণ নিষিদ্ধ।

সিগারেট, অ্যালকোহল বা কোনও ধরণের নেশায় নিষেধাজ্ঞা রয়েছে।

আপনি পরিশোধিত তেল থেকে তৈরি কোনও পণ্য খেতে পারবেন না।

পুরো শস্য এবং ডাল দিয়ে তৈরি খাবার থেকে আপনাকেও দূরত্ব তৈরি করতে হবে।

পরিশোধিত, জাঙ্ক ফুড, স্ট্রিট ফুড এবং প্রসেসড ফুড এড়িয়ে চলতে হবে।

আপনি যদি এই ডায়েট প্ল্যানটিকে পুরোপুরি অনুসরণ না করেন তবে আপনার ওজন পরিমাপ করা যাবে না।

তেলের পরিবর্তে ঘি ব্যবহার করুন

এই ডায়েটে তেলের পরিবর্তে ঘি ব্যবহার করুন। যদিও এই ডায়েটে সমস্ত দুগ্ধজাত পণ্য নিষিদ্ধ করা হয়েছে, তবে কেবল ঘি খাওয়ার কথা বলেন বিশেষজ্ঞরা। আপনি সবুজ শাকসবজিতে ঘি দিয়ে টেম্পারিং যুক্ত করতে পারেন।

বাড়িতে ফলের রস মুছে ফেলুন

এই ডায়েটে থাকাকালীন ৩০ দিনের মধ্যে আপনি আপনার ডায়েটে ফল এবং তাদের জুস যুক্ত করতে পারেন। তবে প্যাকেজযুক্ত ফলের রস ব্যবহার নিষিদ্ধ। প্যাকেটের পরিবর্তে, ফলের রস পান করা উচিত। ফল এবং ফলের রসগুলিতে একটি প্রাকৃতিক মিষ্টি থাকে যা আপনার ক্ষতি করে না এবং চর্বিও বাড়ায় না।

ডালের পরিবর্তে সবুজ শাকসবজি খান

এই ডায়েটে কেউ অরহর, মুগ, মসুর এবং ছোলা জাতীয় ডাল খাওয়া যায় না। তবে কেউ ব্রোকলি, সবুজ মটর জাতীয় সবুজ শাকসবজি খেতে পারেন। এর বাইরে আপনি মাংস এবং মাছও অন্তর্ভুক্ত করতে পারেন।

নারকেলের দুধ খেতে পারেন

এই ডায়েটটিতে প্রাণীজ দুধ নিষিদ্ধ, তবে আপনি চাইলে নারকেল দুধ খেতে পারেন। নারকেল স্বাস্থ্যের জন্য প্রয়োজনীয় অ্যামিনো অ্যাসিড ধারণ করে, যা প্রোটিন তৈরিতে সহায়ক।

পুষ্টিবিদদের মতে, তিন সপ্তাহের মধ্যে নতুন অভ্যাস অনেকটা তৈরি হয়ে যাবে, যদিও অভ্যাস পুরোপুরি বদলাতে ৬৬ দিনের মতো লাগে, তবু তিন সপ্তাহে শরীর–মন–এনার্জি ও ওজনের উপর এত ভালো প্রভাব পড়ে, অব্যর্থ ভাবে ওজন কমতে শুরু করে যে বাকি ক’টা দিন এই ডায়েট টানা যায়৷ ইচ্ছে হলে ৩০ দিন, ইচ্ছে হলে ৬৬ দিন৷ ওজন যে কমছে তা শরীরই জানিয়ে দেবে৷ তবে অপ্রস্তুত অবস্থায় হুট করে শুরু করবেন না৷ প্রস্তুতি নিয়ে তবে কাজে নামুন৷ এক-দু’ মাস পর থেকে পুষ্টিবিদের পরামর্শ নিয়ে বাতিলের তালিকা ছোট করুন। বাতিলের তালিকা বড় করার সময় থেকে শুরু করুন ব্যায়াম। ফলে খাবার যোগ হলেও ওজন বাড়বে না।

৫০০০+ মজদার রেসিপির জন্য Google Play store থেকে Install করুন “Bangla Recipes” মোবাইল app…. 🙂
.
মোবাইল app Download Link >>> Bangla Recieps App

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *