এই গরমে শরীর সুস্থ রাখতে লাঞ্চে রাখুন টক ডাল, দেখুন রেসিপি এবং গুনাগুন

বৈশাখ, চৈত্রের এই সময়টাতে খরতাপে পুড়ছে দেশ। গরমে স্বস্তি আনতে কেউ খাচ্ছেন ঠাণ্ডা খাবার। আর কেউবা টক ফল খেয়ে গরম থেকে মুক্তি পেতে চাইছেন। এখন গাছে গাছে ঝুলছে কাঁচা আম। বাজারেও মিলছে তা। মৌসুমের এই কাঁচা আম দিয়ে খেতে পারেন ভিন্ন স্বাদের টক ডাল। এটি যেমন খেতে সুস্বাদু তেমনি পুষ্টিগুণেও ভরা।

সকাল কিংবা দুপুরের খাবারে ভাতের সঙ্গে আমের টক ডাল হতে পারে এই সময়ের অন্যতম মেন্যু। অনেকে মনে করেন আম দিয়ে ডাল রান্না করলে বুঝি এর পুষ্টিগুণ নষ্ট হয়ে যায়। কিন্তু এই ধারণা ভুল। মসুর ডাল দিয়ে আমের টক ডাল রান্না করলে এর পুষ্টিগুণ নষ্ট হয় না বরং পুষ্টিগুণ অটুট থাকে।

এই টক ডাল হজমের জন্য যেমন সহায়ক তেমনি এটি সহজপাচ্য। টক ডাল গরমের ক্লান্তি কাটাতেও সাহায্য করে। এছাড়াও গরমের সময় অরুচি কাটাতেও সহায়ক টক ডাল। তাহলে চলুন শিখে নেওয়া যাক কীভাবে বানাবেন কাঁচা আমের টক ডাল।

উপকরণ –

কাঁচা আম- ২টি/

মসুর ডাল- ১ কাপ/

মুগ ডাল- ১ কাপ/

পাঁচফোড়ন- আধা চা চামচ/

লবণ- স্বাদ মতো/

চিনি- সামান্য/

শুকনা মরিচ- ৪-৫টি/

হলুদ গুঁড়া- ১ চা চামচ/

জিরা- আধা চা চামচ/

সরিষার তেল- আধা চা চামচ/

লেবু- অর্ধেকটি

পদ্ধতি-

আমের খোসা ছাড়িয়ে টুকরা করে কেটে লবণ ও সামান্য হলুদ দিয়ে মেখে রেখে দিন।

মসুর ডাল ও মুগ ডাল ধুয়ে লবণ-হলুদ দিয়ে প্রেশার কুকারে সেদ্ধ করে নিন।

কড়াইয়ে সরষের তেল গরম করে পাঁচফোড়ন, শুকনা লঙ্কা ও জিরা ফোড়ন দিন।

আমের টুকরোগুলো ফোড়নের মধ্যে দিয়ে সামান্য ভেজে নিন।

সেদ্ধ করে রাখা ডাল দিয়ে স্বাদ মতো লবণ ও চিনি দিন।

প্রয়োজন অনুযায়ী জল দিয়ে ডাল ফুটতে দিন।

লেবু কেটে ডালের উপরে ছড়িয়ে নামিয়ে নিন মজাদার টক ডাল।

ডাল খাওয়ার স্বাস্থ্যগুণ

বাঙালির রান্নাঘরের অন্যতম সুপরিচিত একটি খাদ্য উপাদান হলো ডাল। চাল-ডাল মিলিত খিচুড়ি সকলেরই প্রিয়। এছাড়াও ডাল দিয়ে তৈরি বড়া, মসুর ডাল দিয়ে ভাত, ডাল পুরি, আম দিয়ে ডাল, ইত্যাদি সকলেরই খুব প্রিয় খাদ্য। বলা যায় খাদ্যরসিক বাঙালির আহারের শুরু হয় ডালের সংস্পর্শে।

আসুন জেনে নিই ডাল খাওয়ার স্বাস্থ্যগুণ:

মুগ ডাল

মুগ ডাল খেতে খুব হালকা এবং এটি হজম করা খুব সহজ বলে বিবেচিত হয়। এটি সবচেয়ে ওজন হ্রাস ডায়েট অন্তর্ভুক্ত। এটি ভারতীয় রান্নাঘরে ব্যবহৃত অন্যতম সাধারণ ডাল। এটি প্রোটিন, প্রয়োজনীয় অ্যামিনো অ্যাসিড, ফাইবার এবং ভিটামিন বি ১ এর একটি ভাল উত্স।

মুগ ডাল ত্বকের জন্য এবং ওজন কমাতে খুব উপকারী বলে বিবেচিত হয়। মুগ ডাল ওজন কমাতে উপকারী বলে মনে করা হয়। গর্ভবতী মহিলাদের জন্য মুগ ডালের ব্যবহার উপকারী বলে মনে করা হয়। মুগ ডালের ব্যবহার শরীরে সঞ্চিত অতিরিক্ত কোলেস্টেরল হ্রাস করতে সহায়তা করে।

২. মসুর ডাল

মসুর ডাল সম্ভবত ভারতীয় রান্নাঘরের অন্যতম সাধারণ ডাল। মসুর ডাল প্রোটিন, প্রয়োজনীয় অ্যামিনো অ্যাসিড, পটাশিয়াম, আয়রন, ফাইবার এবং ভিটামিন বি ১ এর একটি ভাল উত্স। লাল রঙের মসুর ডাল ফাইবার এবং প্রোটিনের ভাণ্ডার থেকে কম নয়। এক কাপ কাপ মসুরের মধ্যে ২৩০ ক্যালোরি থাকে, প্রায় ১৫ গ্রাম ডায়েটারি ফাইবার এবং প্রায় ১৭ গ্রাম প্রোটিন থাকে।

মসুর ডাল খাওয়ার ফলে পেট এবং হজমের সমস্ত রোগ দূর করতে সহায়তা করতে পারে। মসুর ডাল পেটের সমস্যা থেকে মুক্তি দিতেও সাহায্য করতে পারে। এটি কোলেস্টেরল কমাতে এবং চিনির মাত্রা নিয়ন্ত্রণে সহায়তা করতে পারে।

অড়হর ডাল

অড়হর ডালের স্বাস্থ্যগত সুবিধা অনেকগুলি। অড়হর ডালে আয়রন, ফলিক অ্যাসিড, ম্যাগনেসিয়াম, ক্যালসিয়াম, ভিটামিন বি এবং পটাসিয়াম থাকে। আরহারের ডাল খাওয়া আপনার শরীরকে সুস্থ রাখতে শুধু সহায়তা করে না তবে প্রয়োজনীয় ভিটামিন এবং খনিজ সরবরাহ করে।

অড়হর ডালে প্রচুর পরিমাণে ফাইবার রয়েছে। এটি কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যা থেকে মুক্তি দিতে পারে। নিয়মিত ফাইবার গ্রহণ করলে হৃদরোগের ঝুঁকি কমে যায়, স্ট্রোক এবং ওজনও নিয়ন্ত্রণে রাখা যায়। এতে ফলিক অ্যাসিড পাওয়া যায়। যা মহিলাদের স্বাস্থ্যের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বলে বিবেচিত হয়। এই ডালগুলি কার্বোহাইড্রেটের একটি ভাল উত্স। এটির সাহায্যে শরীর শক্তি পেতে পারে।

উড়ার ডাল

একে সাধারণত কালো ডাল বলা হয়। পাপড়, বড়া এমনকি দোসা তৈরিতেও ব্যবহৃত হয় উড়ার! উড়ার ডাল কেবল স্বাদে সমৃদ্ধই নয় তবে এতে প্রচুর পুষ্টিকর গুণও রয়েছে। এই ডালে ভাল পরিমাণে আয়রন পাওয়া যায়। পেটের জ্বালা দূর করতে উপকারী। চকচকে ত্বক পেতে কার্যকর উড়ার ডাল।

ছোলা ডাল

ছোলা ডালে প্রচুর পরিমাণে ফাইবার এবং প্রোটিন পাওয়া যায়। এই ডাল আপনার শরীরকে সুস্থ রাখতে পাশাপাশি পর্যাপ্ত শক্তি সরবরাহে সহায়ক হতে পারে। ছোলা ডাল খাওয়া যুবকদের জন্য বেশি উপকারী বলে মনে করা হয়। এতে প্রচুর প্রোটিন রয়েছে, যা মাশরুম তৈরিতে অনেক সাহায্য করতে পারে। ছোলা ডাল ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য উপকারী হিসাবে বিবেচিত হয়। এতে কোলেস্টেরলের পরিমাণ খুব কম। এই ডাল খাওয়া রক্তাল্পতা, জন্ডিস, কোষ্ঠকাঠিন্যের জন্য খুব উপকারী বলে বিবেচিত হয়।

৫০০০+ মজদার রেসিপির জন্য Google Play store থেকে Install করুন “Bangla Recipes” মোবাইল app…. 🙂
.
মোবাইল app Download Link >>> Bangla Recieps App

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *