বাবা-মা যদি প্রেমিককে পছন্দ না করেন তাহলে কি করবেন জেনে নিন

যাকে ভালবাসছেন সেই প্রেমিককে আপনার পরিবারের লোকজনের পছন্দ নয়। তাহলে কিভাবে বিয়ে সম্ভব? প্রেমের ক্ষেত্রে মাঝে মধ্যে আমাদের দেশের নারীদের জন্য এমন পরিস্থিতি খুবই স্বাভাবিক ঘটনা। এমন পরিস্থিতি থেকে উৎপত্তি হয় টেনশন, রাগ কিংবা অভিমান। পরিস্থিতি যদি আপনার নাগালের বাহিরে চলে তাহলে কিভাবে মোকাবেলা করবেন?

বাবা-মায়ের কথাটা বোঝার চেষ্টা করুন

বাবা-মা কিন্তু আপনার শত্রু নন। যতই আপনার প্রেমের বিরেধিতা করুন, তাঁরা আসলে আপনার ভালোই চান। আপনি নিশ্চিন্তে, নিরাপদে থাকুন, এটাই তাঁদের কাম্য। তাই আপনার জীবনসঙ্গী হিসেবেও তাঁরা এমন কাউকে চান, যিনি আপনাকে সুখে রাখবেন। তাই তাঁরা যদি আপনার প্রেমিককে পছন্দ না করেন, তা হলে ওঁদের অপছন্দের কারণটা তলিয়ে বোঝার চেষ্টা করুন।

তাড়াহুড়ো করে সিদ্ধান্ত নেবেন না

প্রেম নিয়ে বাড়ির লোকের সঙ্গে মতের অমিল দেখা দিলে অনেক মেয়েই দ্রুত সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলার ভুল করেন। হয় বাড়ির লোকের কথা মেনে নিয়ে প্রেমিকের সঙ্গে সব সম্পর্ক চুকিয়ে দেন অথবা প্রেমিকের হাত ধরে বাড়ি থেকে বেরিয়ে যান। এই তাড়াহুড়োটা করার দরকার নেই। কিছুদিন সময় দিন।

বাবা-মাকে বোঝানোর চেষ্টা করুন। ভদ্রভাবে অথচ দৃঢ়তার সঙ্গে নিজের কথা তাঁদের বলুন। বাবা-মা যদি বোঝেন, এই পুরুষটির সঙ্গেই আপনি সুখে থাকবেন, তা হলে একসময় তাঁরা ঠিকই নরম হবেন। যথেষ্ট সময় দেওয়ার পরেও তেমন কোনও লক্ষণ দেখতে না পেলে তখন না হয় নিজের সিদ্ধান্ত নেবেন।

নিজের প্রেমের পক্ষে যুক্তি দিন

রাগারাগি বা কান্নাকাটি করে কিছু হওয়ার নয়। বাড়ির লোকের ইচ্ছের কাছে আত্মসমর্পণ করেও লাভ নেই। বরং বাড়ির লোকেরা যখন আপনার প্রেমের বিরুদ্ধে কথা বলবেন, তখন আত্মপক্ষ সমর্থন করুন। নিজের প্রেমের পক্ষে যুক্তি দিন। আপনার যুক্তি যথেষ্ট জোরালো হলে বাড়ির লোক ঠিকই মেনে নেবেন। আর যদি দেখেন আপনার হাতে তেমন জোরদার যুক্তি নেই, তা হলে নিজে একবার ভেবে দেখুন।

বেশি জোর দেবেন না

বাবা-মায়ের কাছে প্রেমিকের হয়ে সওয়াল করুন, কিন্তু অতিরিক্ত জোর দেবেন না। কাউকে জোর করে কিছু বোঝানো সম্ভব নয়। বরং কোনও সহানুভূতিশীল আত্মীয়ের সঙ্গে বিষয়টি নিয়ে আলোচনা করলে সমাধানসূত্র বেরোতে পারে।

সচেতন হন, সুখে থাকুন।।

Leave a Reply